ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 weeks ago

পোপ ফ্রান্সিস বললেন,বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও একতার উৎকৃষ্ট স্থান



আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

রাখাইন রাজ্যের সহিংসতা থেকে প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের প্রতি সর্বোচ্চ সংহতি জানিয়ে ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের প্রধান ধর্মীয় নেতা পোপ ফ্রান্সিস তার ছয়দিনের এশিয়া সফর শেষ করেছেন।

https://s.yimg.com/uu/api/res/1.2/JpY.FzgSABPnLaMoqnJ6GA--~B/aD01Mzc7dz03Njg7c209MTthcHBpZD15dGFjaHlvbg--/http://media.zenfs.com/en_sg/News/AFP/0b01563832e51eb987e45dce53d5ae855d0b3f64.jpg

বাংলাদেশ সফরের শেষ দিন শনিবার মাদার তেরেসার আদর্শ অনুসারে পরিচালিত ঢাকার একটি হাসপাতাল পরিদর্শন করেন পোপ ফ্রান্সিস। মূলত রোহিঙ্গাদের ওপর নির্মমতাকে কেন্দ্র করেই তিনি ছয়দিনের বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সফরে আসেন। খবর এএফপির।

https://guardian.ng/wp-content/uploads/2017/12/Pope-Francis-1.jpg

শরণার্থীদের অধিকারের আদায়ে লড়াই করার জন্য পোপ ফ্রান্সিসের পরিচিতি রয়েছে। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর জাতিগত নির্মূলের শিকার রোহিঙ্গাদের পক্ষে তিনি বারবার সংহতি প্রকাশ ও সমর্থন জানিয়েছেন। রোহিঙ্গাদের তিনি ভাই ও বোন হিসেবে সম্বোধন করেছেন।

https://i.ndtvimg.com/i/2017-12/pope-francis-in-bangladesh-afp_650x400_41512119221.jpg

পোপ ফ্রান্সিস স্পষ্টভাষী হলেও মিয়ানমারের তার চারদিনের সফরে তিনি কূটনৈতিক পথে হেঁটেছেন। তিনিই একমাত্র পোপ যিনি বৌদ্ধ-সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটিতে সফর করেছেন। তবে জনসমক্ষে কোথাও তিনি রোহিঙ্গা শব্দটি ব্যবহার করেননি। বৌদ্ধ নেতাদের তিনি সব ধরনের ঘৃণা ও সংকীর্ণতা দূর করার আহ্বান জানিয়েছেন।

http://images.indianexpress.com/2017/12/pope-francis-759.jpg

ঢাকা সফরের শেষ দিনে তিনি তেজগাঁওয়ের মাদার তেরেসা হাউস পরিদর্শন করেন। সেখানে হোলিও রোজারিও চার্চে খ্রিস্টান যাজক, ধর্মগুরু ও ধর্মীয় নেতাদের উদ্দেশে ভাষণ দেন।

https://www.thestar.com/content/dam/thestar/news/world/2017/12/01/pope-francis-says-rohingya-in-emotional-meeting-with-muslim-refugees-in-bangladesh/pope.jpg

মানুষে-মানুষে বিভেদ সমাজের খুঁত আখ্যায়িত করে পোপ ফ্রান্সিস বলেন, বাংলাদেশ হলো আন্তঃধর্ম ও ঐকতানের উৎকৃষ্ট উদহারণ। পোপ তার ভাষণে সবাইকে সমালোচনা ও পরনিন্দা থেকে দূরে থেকে আনন্দ নিয়ে বেঁচে থাকার মন্ত্র দেন।

https://s.yimg.com/ny/api/res/1.2/.3sxVgeopiNZ18pPJkPwBA--/YXBwaWQ9aGlnaGxhbmRlcjtzbT0xO3c9ODAwO2g9NjAwO2lsPXBsYW5l/http://media.zenfs.com/en_us/News/afp.com/2a4defb528fdfde2537625a4773abec9e5e84f0e.jpg

বাংলাদেশ সফরে ছোট একটি রোহিঙ্গা দল পোপের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সেখানে বারো বছরের এক কিশোরী পোপকে বলেন, মিয়ানমারের সেনা অভিযানে সে তার পরিবারের সব সদস্যকে হারিয়েছে। একমাত্র সে-ই সীমান্ত পারি দিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে  সক্ষম হয়েছে।

https://static.seattletimes.com/wp-content/uploads/2017/12/91eafc529aee4da08c023f891a032a3c-780x520.jpg

পোপ বলেন, আপনাদের কষ্ট খুবই কঠিন ও ব্যাপক। কিন্তু আমাদের হৃদয়ে তার একটা জায়গা আছে। যারা আপনাদের ওপর নিপীড়ন চালিয়েছেন, তাদের পক্ষ থেকে আপনাদের কাছে ক্ষমা ভিক্ষা চাচ্ছি।

 

বাংলা রিপোর্ট/এআর