ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 1 month ago

ভারত রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশে ত্রাণ পাঠিয়েছে



বাংলা রিপোর্ট ডেস্ক:

বাংলাদেশে ঢোকার পর আশ্রয়ের জন্য মরিয়া লাখ লাখ রোহিঙ্গা বিভিন্ন সড়ক আর পাহাড়ে ছড়িয়ে পড়ায় তাদের জরুরি সহায়তা পৌঁছে দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর কর্মীদের।টেকনাফ থেকে উখিয়ার বালুখালি, কুতুপালংয়ের পথে ২০ কিলোমিটার সড়কে এখনও হাজার হাজার রোহিঙ্গা আশ্রয় আর সাহায্যের জন্য ছুটছে।

 

বিচ্ছিন্নভাবে স্থানীয়দের দেওয়া খাবার আর কাপড় ছাড়া এই শরণার্থীদের জন্য সংগঠিতভাবে তেমন কোনো ত্রাণ তৎপরতাও এখনও শুরু করা যায়নি।

 

মিয়ানমারের রাখাইনে নতুন করে সেনা অভিযান শুরুর পর গত তিন সপ্তাহে প্রায় চার লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। উখিয়ার কুতুপালং থেকে শুরু করে কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পাহাড়ে পাহাড়ে অসংখ্য ঝুপড়ি গড়ে তুলেছে তারা।

 

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা বলছে, নতুন করে আসা এই রোহিঙ্গাদের অর্ধেকের বেশি কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের পাশে, পাহাড়ে এবং জঙ্গলে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের অধিকাংশই নারী ও শিশু। এ পর্যন্ত যেসব ত্রাণের ট্রাক এসেছে, সেগুলো ওই সড়ক দিয়েই এসেছে বলে তারা রাস্তার কাছাকাছি থাকতে চাইছে।

 

আর যারা বাঁশ আর পলিথিনের ঝুপড়ি তুলে মাথা গোঁজার ব্যবস্থা করতে পেরেছে, তাদের ক্ষেত্রেও পরিস্থিতি একই রকম।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বর্বরোচিত গণহত্যা, ধর্ষণ, অমানবিক নির্যাতন ও ঘরবাড়ী জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনায় গত ২৪ আগস্ট থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশ পালিয়ে এসেছে ৪ লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী। এসব শরণার্থীদের জন্য এবার ত্রাণ নিয়ে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছে ভারত।

 

মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের জন্য ভারতের দেয়া ৫৩ মেট্রিক টন ত্রাণ সামগ্রী বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করেছেন ভারতীয় হাই কমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা।

 

দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, বাংলাদেশে পাঠানো সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, চিনি, লবণ, তেল, চা, নুডলস, বিস্কুট, মশারিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী।

 

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ভারত ও বাংলাদেশের মানুষের মধ্যকার নিবিড় বন্ধুত্বের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের যেকোনো দুর্যোগে কোনোরকম ইতস্ততা না করেই দ্রুত সাড়া দিয়েছে ভারত। প্রয়োজনের এ সময়ে বাংলাদেশ সরকার চাইলে যেকোনো ধরনের সহায়তা করতে প্রস্তুত ভারত।’

প্রথম দফায় ৭ হাজার মেট্রিক টন ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার ভারতীয় বিমান বাহিনীর একটি কার্গো বিমান ৫৩ মেট্রিক টন ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছে।

 

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবাদুল কাদেরের কাছে বিমানবন্দরেই এসব ত্রাণ তুলে দেন।

 

পরে হর্ষবর্ধন শ্রীংলা সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা দেখেছি গত কয়েক সপ্তাহে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে নির্যাতিত শরণার্থীরা বাংলাদেশে ছুটে আসছে। ভারত বিষয়টিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে।’ রোহিঙ্গাদের গ্রহণ এবং আশ্রয়ের ব্যবস্থা করায় তিনি বাংলাদেশ সরকারকেও ধন্যবাদ জানান।

 

এর আগে মরোক্কো থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ১৪ টন ত্রাণসামগ্রী নিয়ে একটি বিমান চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পৌঁছে। এছাড়াও ইরান, ইন্দোনেশিয়াসহ বেশকয়েকটি দেশ থেকে আরো ত্রাণ নিয়ে কার্গো বিমান চট্টগ্রাম বিমান বন্দরে আসার কথা রয়েছে।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এইচএম