ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 5 months ago

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৮ উইকেটের সহজ জয় টাইগারদের



ত্রিদেশীয় সিরিজে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ার জয়ের দেখা পায়নি মাশরাফিরা। আজ এই সিরিজে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে মাশরাফিরা আবারো মুখোমুখি হয় আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে। স্বাগতিকদের বিপক্ষে ৮ উইকেটের সহজ জয় পায় টাইগাররা। আয়ারল্যান্ডের দেয়া ১৮২ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে মাত্র ২৭.১ ওভার মোকাবেলায় ২ উইকেট হারিয়ে ১৮২ রান করলে ৮ উইকেটের সহজ জয় পায় তারা।

উদ্বোধনী জুটিতে আবারও দারুণ সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। ৯৫ রানের বড় পার্টনারশিপ গড়েন এই জুটি। ব্যক্তিগত ৪৭ রানে তামিম ইকবাল আউট হলে প্রথম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তার এই ৪৭ রানের ইনিংসে ৬টি দৃষ্টিনন্দন বাউন্ডারির মার রয়েছে।

তামিম ইকবাল আউট হওয়ার পর ক্রিজে আসেন মারকুটে ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান। সৌম্য সরকারের সাথে ৭৬ রানের আরো একটি পার্টনারশিপ গড়েন সাব্বির। সাব্বির আউট হওয়ার আগে ৩৪ বলে ৩৫ রানের ইনিংস খেলেন। তার ইনিং ৩টি চার ও একটি ছক্কার মার রয়েছে। সাব্বির যখন আউট হন দলীয় রান তখন ১৭১।

জয় থেকে মাত্র ১১ রান দূরে টাইগাররা। ক্রিজে আসেন মুশফিকুর রহীম। বাকি সময় আর কোনো উইকেট না হারিয়ে ২৭.১ ওভারে ১৮২ রান করে জয়ের বন্দের পৌঁছে লাল-সবুজ পতাকাধারীরা। সৌম্য সরকার ৮৭ রান করে অপরাজিত থাকেন। মাত্র ৬৮ বল মোকাবেলা করে ওই রান করেন সৌম্য। তার ইনিংসে ১১টি বাউন্ডারি ও দুটি বিশাল ছক্কার মার রয়েছে। এদিন ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ অর্ধশত রানের দেখা পান সৌম্য সরকার।

এর আগে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডকে ১৮১ রানে অলআউট করে মাশরাফি বাহিনী। ৪৬.৩ ওভার মোকাবেলায় ওই রান করে আইরিশরা। ফলে জিততে হলে টাইগারদের করতে হবে ১৮২ রান।

কাটার মাস্টার খ্যাত মোস্তাফিজুর রহমান একাই নেন চার উইকেট। ৯ ওভার বল করে দু’টি মেডেনসহ মাত্র ২৩ রান খরচায় চার উইকেট নেন মোস্তাফিজ। এছাড়া অভিষিক্ত সানজামুল ইসলাম ও অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা নেন দুটি করে উইকেট। বাকি দুই উইকেট নেন সাকিব আল হাসান ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

শুরুতেই আইরিশ শিবিরে আঘাত হানেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। দলীয় শূন্য রানেই ওপেনার স্টার্লিংকে ফিরিয়ে দেন মুস্তাফিজ। সাব্বিরের হাতে ক্যাচ দিয়ে কোনো রান না করেই বিদায় নেন তিনি।

এরপর ক্রিজে আসেন অধিনায়ক পোর্টার ফিল্ড। মাত্র ২২ রান করে আউট হন তিনি। দলীয় রান তখন। আর উইকেটটি নেন বাংলাদেশের তরুণ অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। এরপর দলীয় ৬১ রানে সাকিব আল হাসান ব্যাবিরনিকে সরাসরি বোল্ড করে দিলে তৃতীয় উইকেট হারায় আয়ারল্যান্ড।

এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকলে ৪৬.৩ ওভারে ১৮১ রানে অলআউট হয় আয়ারল্যান্ড।

স্টার্লিং, নেল ও’ব্রায়েন, কেভিন ও’ব্রায়েন এবং উইলসন এই চারজনের উইকেট নিজের ঝুলিতে নেন মোস্তাফিজুর রহমান।

অভিষিক্ত সানজামুল শিকার করেন এড জয়েস এবং ব্যারি ম্যাকার্থির উইকেট। অধিনায়ক মাশরাফির শিকার জর্জ ডকরেল এবং পিটার চেজ।

আয়ারল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৬ রান করেন ওপেনার এড জয়েস। ৭৪ বলে ৩টি চারের সাহায্যে ওই রান করেন তিনি। এছাড়া নেল ও’ব্রায়েন ৩০, ডকরেল ২৫ এবং পোর্টার ফিল্ডের ২২ রান উল্লেখযোগ্য।

চার উইকেট শিকারি বাংলাদেশের পেসার মোস্তাফিজুর রহমান ম্যাচসেরার পুরস্কার পান।

আগামি ২৫ মে বাংলাদেশ তাদের শেষ খেলায় নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

আয়ারল্যান্ড ইনিংস : ১৮১/১০ (৪৬.৩ ওভার) (জয়েস ৪৬, নেল ও’ব্রায়েন ৩০, ডকরেল ২৫, পোর্টারফিল্ড ২২, ব্যালবিরনি ১২, ম্যাকার্থি ১২; মোস্তাফিজ ৪/২৩, মাশরাফি ২/১৮, সানজামুল ২/২২, সাকিব ১/৩৮ এবং মোসাদ্দেক ১/২১)।

বাংলাদেশ ইনিংস : ১৮২/২ (২৭.১ ওভার) (তামিম ইকবাল ৪৭, সৌম্য সরকার ৮৭ নট আউট, সাব্বির রহমান ৩৫ ও মুশফিকুর রহীম ৩ নট আউট; ম্যাকার্থি ১/৪২, ক্যাভিন ও’ ব্রায়েন ১/২২)।

ফল: বাংলাদেশ ৮ উইকেটে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ : মোস্তাফিজুর রহমান (বাংলাদেশ)

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এমএকে