ব্রেকিং নিউজঃ

পাবনায় সড়ক দুর্ঘটনায় ৫ জন নিহত, আহত ১৫  ***  অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর হুঁশিয়ারি  ***  নায়করাজের জানাযা হবে একবারই  ***  নায়করাজের মরদেহ আজ নেওয়া হবে শহীদ মিনারে  ***  রাজধানীতে তিন ঘণ্টায় ৫৪ মিলিমিটার বৃষ্টি  ***  পাবনায় দুই বাসের সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত  ***  সাত খুন মামলা: হাইকোর্টের রায় পড়া শুরু  ***  বাংলা চলচ্ছি্ত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা নায়করাজ রাজ্জাকের প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় তার মরদেহ কেন্দীয় শহীদ মিনারে রাখা হবে :সকালে এফডিসিতে মরদেহ নেওয়া হতে পারে,বাদ জোহর গুলশান আজাদ মসজিদে নামাজে জানাজা, দাফন বনানী কবরস্থানে।  ***  নায়করাজ রাজ্জাকের জানাজা মঙ্গলবার বাদ জোহর  ***  সংবিধান নিয়ে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি, এমন মন্তব্য করার আগে পদত্যাগ করা উচিৎ ছিল প্রধান বিচারপতির: প্রধানমন্ত্রী
Published: 3 weeks ago

চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ জটের কারণ



বাংলা রিপোর্ট ডেস্ক:

দেশে আমদানি-রফতানির বৃহত্তম বন্দর হচ্ছে চট্টগ্রাম বন্দর। এই বন্দরে টানা আড়াই মাসের জাহাজজটের কারণে তৈরি পোশাক শিল্পের কাঁচামালবোঝাই জাহাজকে পণ্য খালাসের জন্য দিনের পর দিন অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এতে কনটেইনার ও জাহাজ ভাড়া বাবদ অতিরিক্ত জরিমানা গুণতে হচ্ছে পোশাকশিল্প মালিকদের।

 

অন্যদিকে সময়মতো রফতানি পণ্য পাঠানো যাচ্ছে না। পণ্যবাহী কনটেইনার না নিয়েই জাহাজের বন্দর ছেড়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটছে, যা ইতিহাসে কখনোই ঘটেনি।

 

কিন্তু চট্টগ্রাম বন্দরে কেন এই জাহাজজট। গতকাল সোমবার ‘চট্টগ্রাম বন্দরে পোশাকশিল্পের আমদানি করা মালামাল খালাস ও রপ্তানি পণ্য জাহাজীকরণে জটিলতা এবং পোশাক খাতের সার্বিক পরিস্থিতি’ বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিজিএমইএ’র সভাপতি সিদ্দিকুর রহমানের লিখিত বক্তব্যেই জাহাজজটের কারণ ওঠে এসেছে।

তিনি যা তথ্য দেন, তা রীতিমতো আঁতকে ওঠার মতো। দেশের এত বড় একটি সমুদ্র বন্দর যার কীনা এই হাল! তিনি জানান, চট্টগ্রাম বন্দরে কনটেইনার ওঠানো-নামানোর জন্য যন্ত্রপাতি প্রয়োজন ২৯৯টি, আছে মাত্র ৮৭টি।

 

এছাড়া কার্গো হ্যান্ডলিংয়ের জন্য ৮৯৫টি যন্ত্রপাতির প্রয়োজন হলেও বর্তমানে আছে মাত্র ২৮৫টি। এমন তথ্য দিয়ে বন্দর সচল রাখতে বিজিএমইএর সভাপতি বেশ কিছু প্রস্তাব তুলে ধরেন।

 

তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য, বিকল দু’টি গ্যান্ট্রি ক্রেন দ্রুত মেরামত, কনটেইনার ওঠানো-নামানোর জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সরকারিভাবে ক্রয় কিংবা ভাড়া নিয়ে সংকট মোকাবিলা, পোশাকের কাঁচামালবাহী এফসিএল কনটেইনার শুল্কায়নসহ এক কর্মদিবসে বিতরণ, পতেঙ্গা টার্মিনাল নির্মাণকাজ শিগগিরই শুরু করা, কনটেইনারবাহী জাহাজকে অগ্রাধিকার দেওয়া, বন্দরের জেটিতে আরও এলসিএল শেড নির্মাণ করা ইত্যাদি।

 

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বিজিএমইএ ভবনে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির সহসভাপতি ফারুক হাসান, মোহাম্মদ নাছির প্রমুখ।

 

বিজিএমইএর নেতারা আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে বিদেশের ক্রেতারা সময়মতো পোশাক পাবে না। আর প্রতিনিয়ত এমনটি হলে ক্রেতারা তাদের পোশাক তৈরির ক্রয়াদেশ ভারত, ভিয়েতনাম, ইথিওপিয়া ও মিয়ানমারের মতো দেশে সরিয়ে নিতে পারে।

 

চট্টগ্রাম বন্দরের চলমান সংকট নিরসনে শিগগিরই ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়ে বিজিএমইএর সভাপতি বলেন, ‘পোশাকশিল্পকে টিকিয়ে রাখতে আমরা যখন আপ্রাণ চেষ্টা করছি, তখন মরার উপর খাঁড়ার ঘায়ের মতো আমাদের সামনে এসেছে চট্টগ্রাম বন্দর সংকট।’

 

তিনি আরও বলেন, ‘চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ক্রয় এবং পর্যাপ্ত জেটি ও ইয়ার্ড নির্মাণ করার জন্য ২০০৪ সাল থেকে বিজিএমইএ জোরালোভাবে বলে আসছে। এ ছাড়া বিভিন্ন সময় নৌপরিবহনমন্ত্রী, সংসদীয় কমিটি ও বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করে আসছি। কিন্তু আমরা উন্নতি লক্ষ করছি না।’

 

চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজজট নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ১ আগস্ট মঙ্গলবার থেকে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর ২৪ ঘণ্টা খোলা রেখে আমদানি-রফতানি সচল রাখার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আজ থেকে আন্তঃমন্ত্রণালয়ের গৃহীত সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম বন্দরের সদস্য (প্রশাসন) জাফর আলম।

 

এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম বন্দর সূত্র জানায়, আজ থেকে চট্টগ্রাম বন্দরের ব্যাংক ও কাস্টমস অফিস ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা হবে। আমদানি-রফতানিকারকরা যাতে দেশের বৃহত্তম এই বন্দর থেকে সার্বক্ষণিক পূর্ণ সুযোগ-সুবিধা নিতে পারেন- সে কারণেই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

 

বন্দর কর্তৃপক্ষ আরো জানায়, চট্টগ্রাম বন্দরের দু’টি গ্যান্ট্রি ক্রেন বিকল রয়েছে। তবে নতুন তিনটি রাবার গ্যান্ট্রি ক্রেন এরই মধ্যে চট্টগ্রাম বন্দরে আনা হয়েছে। এ বছরের মধ্যে আরো ১১টি রাবার গ্যান্ট্রি ক্রেন আনা হবে বলেও জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

 

এদিকে চট্টগ্রাম বন্দরে সমস্যার কথা স্বীকার করেছেন অর্থমন্ত্রীও। তিনি বলেন, এতে সময় নষ্ট হচ্ছে, সময় নষ্ট হওয়া মানেই লোকসান। আমরা চেষ্টা করছি চট্টগ্রাম বন্দরের জাহাজজট নিরসনের।

 

মঙ্গলবার একনেক-এর বৈঠকশেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। তিনি বলেন,আন্তর্জাতিক সীমারেখায় অবস্থিত শেওলা, ভোমরা, রামগড় এবং বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি-রফতানির পাশাপাশি নিয়মিত পর্যটক চলাচল করে থাকে।

 

এ কারণে এই চার স্থলবন্দরের সক্ষমতা ও নিরাপত্তা বাড়াতে অবকাঠামো উন্নয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ রিজিওনাল কানেক্টিভিটি প্রজেক্ট, শেওলা, ভোমরা, রামগড় স্থল বন্দর উন্নয়ন এবং বেনাপোল স্থলবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নয়ন’শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় শেওলা, ভোমরা, রামগড় ও বেনাপোল স্থলবন্দরের বিভিন্ন ধরনের অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হবে। এতে ৬৯৩ কোটি টাকা ব্যয় হবে, যার মধ্যে বিশ্বব্যাংক প্রকল্প সাহায্য হিসেবে ৫৯২ কোটি ৫৬ লাখ টাকা ব্যয় করবে। বাকি ১০০ কোটি ৪৪ লাখ টাকা পাওয়া যাবে সরকারি তহবিল থেকে। জুলাই,২০১৭ থেকে জুন ২০২১ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এমএকে