ব্রেকিং নিউজঃ

বাংলাদেশের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্ট দল ঘোষণা  ***  রাস্তার ধারে ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণ! প্রাণ হারালেন ৪ সেনা, আহত ৬  ***  ঢাবি ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত  ***  রোহিঙ্গা নির্যাতন, গণহত্যায় আন্তর্জাতিক গণআদালতে দোষী সাব্যস্ত হলেন সু চি ও সেনাপ্রধান  ***  দেশে ফোর-জি নেটওয়ার্ক সার্ভিস চালু হবে আগামী ডিসেম্বরে : তারানা হালিম  ***  বার্মায় রেডক্রসের ত্রাণবাহী নৌকায় বৌদ্ধদের হামলা  ***  ট্রাম্পকে কড়া ভাষায় জবাব দিলেন ইরানের প্রেসিডেন্ট  ***  শ্যামপুরে আগুনে পুড়ে দগ্ধ একই পরিবারের ৫ জন, যেভাবে আগুন লাগে  ***  ভারতের কাছে ৫০ রানে হেরে গেল অস্ট্রেলিয়া  ***  প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশ ২৮৫ রানে এগিয়ে
Published: 3 months ago

বাংলাদেশ ভারতের মধ্যকার শেষ পাঁচটি ওয়ানডে



আগামীকাল যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামের এজবাস্টনে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির দ্বিতীয় সেমফিাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে উপমহাদেশের দুই দল বাংলাদেশ ও বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ভারত। গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয়ী হয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে টিম ইন্ডিয়া। বিগত কয়েক বছর যাবতই ওয়ানডে ক্রিকেটে ভাল করে আসছে বাংলাদেশ দল। যে কোন দলের বিপক্ষেই সব ম্যাচেই দারুণ নৈপুণ্য দেখিয়ে আসছে মাশরাফির নেতৃত্বাধীন দলটি।

 

পক্ষান্তরে ভারত সব সময়ই একটি বড় দল হিসেবে পরিচিত। বিগত কয়েক বছরে বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ মানেই নতুন উত্তেজনা। এখন আর হারার আগেই ম্যাচ হেরে বসে না বাংলাদেশ। আগামীকালের ম্যাচে কাগজে কলমে যদিও ভারতই এগিয়ে থাকছে। তথাপি বাংলাদেশও একের পর এক বিস্ময় উপহার দিয়ে আসছে। সাম্প্রতিক সময়ে নিজ মাঠে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের পাল্লাটা ভারী। খবর বাসস।
এবার আমরা দুই দলের সর্বেশেষ পাঁচ ওয়ানডের দিকে চোখ দিতে চাই। যেখানে উভয় দলই দুটি করে ম্যাচে জয় পেয়েছে। একটি ম্যাচ হয়েছে পরিত্যক্ত।
বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপাক্ষিক সিরিজ, ২০১৫ :
২৪ জুন ২০১৫ মিরপুর, ভারত ৭৭ রানে জয়ী
টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে শিখর ধাওয়ানের ৭৫ এবং মহেন্দ্র সিং ধোনির ৬৯ রানের সুবাদে ভারত ৩১৭ রান সংগ্রহ করে। জবাবে খেলতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যেয়ে পড়ে স্বাগতিক বাংলাদেশ। সুরেশ রায়নার তিন উইকেটের পর রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ৩৫ রানে ২ উইকেট শিকারের ফলে ২৪০ রানে গুটিয়ে যায় টাইগাররা। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন ওপেনার সৌম্য সরকার।

 
২১ জুন, ২০১৫, মিরপুর
বাংলাদেশ ৬ উইকেটে জয়ী ( ৯ ওভার বাকি থাকতে, বৃষ্টি আইনে)
টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করাপর সিদ্ধান্ত নেন ভারতীয় অধিনায়ক। মুস্তাফিজুর রহমানের ৬ উইকেট শিকারে ধাওয়ানের ৫৩ ও ধোনির ৪৭ রান সত্ত্বেও ২০০ রানে গুটিয়ে যায় ভারত। জবাবে সাকিব আল হাসানের ৫১ রানের সুবাদে ৪ উইকেট হারিয়েই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

 
১৮ জুন, ২০১৫, মিরপুর-বাংলাদেশ ৭৯ রানে জয়
টসে জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে দুই ওপেনার তামিম ইকবালের ৬০, সৌম্য সরকারের ৫৪ এবং মিডল অর্ডারে সাকিব আল হাসানের ৫১ রানের সুবাদে ৩০৭ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। জবাবে মুস্তাফিজুর রহমানের ৫ উইকেট শিকারের রোহিত শর্মার ৬৩ এবং সুরশে রায়নার ৪০ রানের সুবাদে ২২৫ পর্যন্ত যেতে সক্ষম হয় ভারত।

 

১৯ মার্চ, ২০১৫ (আইসিসি বিশ্বকাপ), মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড-ভারত ১০৯ রানে জয়ী
প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে রোহিত শর্মার ১৩৭ রানের সুবাদে ভারত ৩০২ রান সংগ্রহ করে। বাংলাদেশের পক্ষে পেসার তাসকিন আহমেদ ৩ উইকেট শিকার করেন। জবাবে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়া বাংলাদেশ ১৯৩ রানে গুটিয়ে যায়।
১৯ জুন, ২০১৪, মিরপুর-পরিত্যক্ত
টসে জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে ভারত। দুই ওপেনার রবিন উথাপ্পা এবং আজিঙ্কা রাহানে অল্প রানেই আউট হয়ে যায়। বৃষ্টিও কারণে ম্যাচ পরিত্যক্ত হওযার আগে ৩৪.২ ওভারে ভারত ১১৯ রান করতে সক্ষম হয়।
গত পাঁচ ম্যাচ বিবেচনায় ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশ-ভারত সমানে সমান। বাংলাদেশ দলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারেন তামিম আকবাল ও মুস্তাফিজুর রহমান। পক্ষান্তরে বাংলাদেশের বিপক্ষে রেকর্ড বিবেচনায় ভারতের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন।
অবশ্য টাইগারদের বিপক্ষে শিখর ধাওয়ানের রেকর্ডও বেশ সমৃদ্ধ এবং বর্তমান টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত ফর্মে আছেন তিনি।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এএইচ