ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

সাতক্ষীরা জেলা আ. লীগের দ্বন্দ্ব চরমে



সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নির্দেশনা সত্ত্বেও জেলা আওয়ামী লীগের দ্বন্দ্ব চরম আকার ধারণ করেছে। জেলা আওয়ামী লীগের একাংশ গোপন সভা করে সিদ্ধান্ত নেয়ায় দ্বন্দ্ব তীব্র আকার ধারণ করেছে। এতে আওয়ামী লীগের তৃণমুল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মোকাবিলা করার পরিবর্তে দলের একাংশরা ব্যক্তিস্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য দলকে দ্বিখণ্ডিত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয়  নির্দেশ উপেক্ষা করে বৃহস্পতিবার জেলা  আওয়ামী লীগের একাংশ এক গোপন সভা আহবান করেন। সভায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো নজরুল ইসলামকে সাংগঠনিক শাস্তি দেয়ার দাবি জানায় সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের একাংশ। আর এই শাস্তি হিসাবে তাকে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অপসারণ করতে হবে। এমন অবস্থায় এক নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আবু আহমেদের ওপর ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব দেয়ার নিয়ম থাকলেও তা দেয়া হবে না। এর কারণ হিসাবে বলা হয়েছে তিনিও নজরুল ইসলামকে তার সকল কাজের সহায়তা করেছে। ফলে জেলা আওয়ামী লীগের দুই নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্রকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়ার সুপারিশ করবে।

বৃহস্পতিবার শহরের অদূরে কামাননগর তুফান কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত জেলা আওয়ামী লীগের একাংশ এক গোপন বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এতে বলা হয় আগামী ২০মে এবং পরদিন ২১ মে ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠেয় বৈঠকে এ প্রস্তাবনা তুলে ধরা হবে। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনসুর আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠেন বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা  সদর আসনের সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তিন ফিরোজ আহমেদ। বৈঠকে দলের ৪০ জনকে ডাকা হয়। তাদের মধ্যে কতজন উপস্থিত ছিলেন তা সঠিকভাবে জানা যায়নি। বৈঠক সংশ্লিষ্টরা নাম পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে বলেন,  সভায় যারা উপস্থিত থাকেননি তারাও এই সিদ্ধান্তে একমত প্রকাশ করে কাগজপত্রে স্বাক্ষর দিতে সম্মত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের দ্বন্দ্ব নিরসনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গত ৪ মে প্রধানমন্ত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ আওয়ামী লীগ দলীয় ৩ জন সংসদ সদস্যদের সভায় আহ্বান করেন।  সভায় দ্বন্দ্ব নিরসনপূর্বক এক সাথে কাজ করার জন্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকে নির্দেশ প্রদান করেন।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এমএকে