ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

চুয়াডাঙ্গায় ভোজন বিলাসের ‘পাটিশাপটা’ চাহিদার শীর্ষে



চুয়াডাঙ্গা থেকে হোসেন জাকির:

ভোজন রসিক বাঙালির ইফতার মানেই নানা পদের খাবারের সমাহার। সেসব খাবারের মধ্যে এলাকাভেদে বিশেষ কিছু খাবার সবসময়ই চাহিদার শীর্ষে থাকে। যেমন চুয়াডাঙ্গার রোজাদারদের কাছে ভোজন বিলাসের ‘পাটিশাপটা’র চাহিদা কিছুটা বেশি। ইফতারে নানাপদের খাবারের সাথে পাটিশাপটা না থাকলে মন ভরে না অনেকের। এরসাথে অনথনের চাহিদাও রয়েছে বেশ।

 

চপ, পিয়াজু, বেগুনি, ছোলা, শাহীজিলাপীসহ চুয়াডাঙ্গার বাজারে বেশকিছু আকর্ষণীয় ইফতার আইটেম পাওয়া যায়। এরমধ্যে ডিমচপ, মাংসচপ, চিংড়ীচপ, পাকোড়া, কিমাপুরী, পটলচপ, চিকেনফ্রাই, শাহীসিঙ্গারা, কাটিকাবাব, শাহী হালিম, স্পেশাল হালিম, বোরহানী ইত্যাদি। ইফতারে মুখরোচক এসব খাবারকে ছাপিয়ে পাটিশাপটা ও অনথন রয়েছে চাহিদার শীর্ষে।

 

চুয়াডাঙ্গা বড় বাজারের ভোজন বিলাসের স্বত্বাধিকারী এএনএম আরিফ বলেন, ইফতারে চুয়াডাঙ্গাবাসী যেসব খাবার খেয়ে থাকেন তার মধ্যে পাটিশাপটা ও অনথনের চাহিদা খানিকটা বেশি। আমরা প্রতিদিন যে পরিমাণ পাটিশাপটা ও অনথন তৈরি করি চাহিদা সবসময়ই তারচেয়ে বেশি থাকে। প্রায়দিনই পাটিশাপটা ও অনথন না পেয়ে ফিরে যান অনেকে।

 

তিনি আরো বলেন, আমাদের খাবারের মান ভালো, দামে কম। পরিচ্ছন্ন পরিবেশে আমরা এগুলো তৈরি করি। এজন্য বেশিরভাগ মানুষ ভোজন বিলাসের পাটিশাপটাসহ অন্য পদের ইফতারী কিনে থাকে।

 

ভোজন বিলাস ছাড়াও শহরের ফুড গার্ডেন, হোটেল আল-আমিন, হোটেল শিমরান, ঢাকা বিরিয়ানী হাউজসহ বেশ কিছু খাবারের হোটেল জেলাবাসীর ইফতারের চাহিদা পূরণ করে থাকে। এর সাথে রয়েছে ফুটপাতের কিছু দোকান।

 

ফুড গার্ডেনের স্বত্বাধিকারী খন্দকার পরাগ বলেন, প্রচলিত ইফতার আইটেমের সাথে আমরা বোরহানী, স্পেশাল হালিম, চিকেনফ্রাই ও পাটিশাপটা করে থাকি। সবগুলোই জেলাবাসীর প্রিয় ইফতারের তালিকায় থাকে।

 

চুয়াডাঙ্গা শহরের পোস্ট অফিসপাড়ার বাসিন্দা মশিউর রহমান ইফতার কিনতে এসে জানান, আমরা প্রায়ই ইফতারে পাটিশাপটা অথবা অনথন রাখি। এগুলো জেলাবাসীর চাহিদার শীর্ষে রয়েছে। একসময় পাটিশাপটা বাড়িতেই বানানো হতো। এখন শহরের কয়েকটি দোকানে পাটিশাপটা পাওয়া যায়। এজন্য বাড়িতে তৈরির প্রচলন কমে আসছে।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এমএকে