ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

শিক্ষককে ফাঁসাতে গিয়ে …..!



যশোর সদর উপজেলার কাজী নজরুল ইসলাম ডিগ্রি কলেজের এক শিক্ষককে ইয়াবা ট্যাবলেট দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ধরা খেয়েছেন কোতোয়ালি থানার এসআই এসএম শামীম আকতার।

 

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ১৩ জুন (মঙ্গলবার) সন্ধ্যার দিকে ওই কলেজের বাংলা প্রভাষক জাহিদুল ইসলাম কর্মস্থল থেকে নিজ বাড়ি সদর উপজেলার মুরাদগড় গ্রামে ফিরছিলেন। তিনি যশোর-ঝিনাইদহ সড়কের কাজী শাহেদ সেন্টারের সামনে পৌঁছালে পুলিশ তার গতি রোধ করে। এ সময় পুলিশের সোর্স ওই শিক্ষকের পকেটে ইয়াবা ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন এবং এসআই শামীম শিক্ষককে আটকের চেষ্টা করেন।

 

এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বাগবিতণ্ডা শুরু হয়। পরে স্থানীয় জনতা সেখানে জড়ো হলে শিক্ষককে ছেড়ে দেন এসআই শামীম। বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) সন্ধ্যায় এ অভিযোগে ওই এসআইকে প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়েছে।

 

ঘটনাটি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হলে বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) সন্ধ্যায় এসআই শামীমকে প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়।

 

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে যশোর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহিদ মুহাম্মদ আবু সরোয়ার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শামীমকে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে ঘটনার সঙ্গে আর কে কে যুক্ত, তা জানা যাবে। তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

 

কেন বারবার পুলিশ কর্মকর্তারা এমন ঘটনা ঘটাচ্ছেন—এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘যশোরে দুই হাজার পুলিশ কাজ করে। দুজন পুলিশের দায় সব পুলিশ নেবে না। ব্যক্তির সীমাহীন লোভের কারণেই এমন ঘটনা ঘটছে। ’

 

পুলিশের এই ইয়াবা অস্ত্র বারবার ব্যবহার করে নিরীহ মানুষকে হেনস্তা করার ঘটনায় যশোরাঞ্চলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। অনেক অভিভাবক ও তরুণ যুবক আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে।

 

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক যুবক বলেন, ‘পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেওয়ার ভয়ে এখন পকেটবিহীন জামা-প্যান্ট পরে বের হচ্ছি। ’

 

এছাড়া, গত ১৫ জুন (শনিবার) রাত ১০টার দিকে এক যুবকের পকেটে গাঁজা ঢুকিয়ে আটকের চেষ্টা করেন কোতোয়ালি থানার আরেক এসআই মাহবুবুর রহমান। সে সময় স্থানীয়রা ওই পুলিশ কর্মকর্তাতে হাতেনাতে ধরে পিটুনি দিয়ে আটকে রাখে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। এ ঘটনায় পুলিশের ওই সদস্যকেও প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয়।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এম/এম.