ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

রাঙামাটিতে সবজির দাম আকাশছোঁয়া



রাঙামাটি প্রতিনিধি:

প্রবল ভারি বর্ষণে ভূমি ধস হওয়ার কারণে সড়ক পথে যোগাযোগ বন্ধ হওয়ায় রাঙামাটির সবজির দাম এখন আকাশছোঁয়া। চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে তরিতরকারী। সবজির এমন দামে সাধারণ মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছে।

 

বৃহস্পতিবার দুপুরে সরেজমিনে রাঙামাটি শহরের বনরুপা,রির্জাভ বাজার, তবলছড়ি, কলেজ গেইট, ভেদভেদীর সবজি ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ঝিঙে প্রতিকেজি ৮০,বেগুন ১০০, মিষ্টি কুমড়া কেজিতে ৪০ কাকরোল ১০০, ছোট শসা ৫০, বড় শসা, গাজর ১২০ টাকা পটল ৬০ টাকা, কচুলতি কেজি প্রতি ৬০, বরবটি ৭০,আলু ৬০, কাচামরিচ ১৬০, পুইশাঁক প্রতি আটি ২০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। এছাড়া নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দামও বেড়েছে।

 

এদিকে, প্রতি হালি ডিম বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা। আগে বিক্রি হয়েছে ৩৫ টাকা। এছাড়া ফার্মের মুরগীর দাম ১৫০ টাকা থেকে কমে ১৪৫ টাকা এবং দেশী মুরগী ৩৮০ টাকা থেকে কমে ৩৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

 

ক্রেতা ইফতেখার জানান, আমরা বর্তমানে দুর্বিসহ জীবনযাপন করছি। শাক-সবজি থেকে শুরু করে নিত্য প্রয়োজনীয় সকল দ্রব্য চড়া দামে বিক্রি করা হচ্ছে।

 

মোহাম্মদ হারুন আল রশিদ জানান, আমি ৭৪ সালে দুর্ভিক্ষ দেখেছি, ৯১ সালের ঘূর্ণিঝড় দেখেছি কিন্তু এরকম মানবিক বিপর্যয় দেখিনি। একদিকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রীর চড়া দাম অন্যদিকে সবজির আকাশচুম্বী দামের কারণে মানবিক বিপদে দিন কাটাচ্ছি।

 

সবজি ব্যবসায়ী বেলাল জানান, সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকায় আমরা সবজি সরবরাহ করতে পারছি না। যারা কারণে আমাদের বাড়তি দামে সবজি বিক্রি করতে হচ্ছে।

 

এ ব্যাপারে বনরূপা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি আবু সৈয়দ জানান, বাজারে সবজির দাম বাড়তি নেওয়ার বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি। বাজার মনিটরিং করার জন্য ব্যবসায়ী সমিতির সদস্যরা বিকেলে বাজার পরিদর্শনে নামবে।

এদিকে বাজারে অতিরিক্ত দাম কমানোর জন্য জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মাহবুবুল হকের নেতৃত্বে একটি দল বাজার পরিদর্শনে নেমেছেন এবং বনরূপা বাজারে নেমে অতিরিক্ত সবজির দাম নেওয়ার কারণে সবজি ব্যবসায়ী মহিউদ্দীনকে আর্থিক জরিমানা করা হয়।

 

এসময় ম্যাজিস্ট্রেট জানান, বাজার দর না কমা পর্যন্ত আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এমএকে