ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 4 months ago

সাতক্ষীরায় কুষ্ঠরোগ বিষয়ক মতবিনিময় সভা



সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:

কুষ্ঠরোগে ভয় নয়। কুষ্ঠ রোগীর প্রতি অবহেলাও  নয়। নিয়মিত চিকিৎসা নিলে কুষ্ঠ রোগী শুরুতেই ভালো হয়ে যায়। দেশের সব সরকারি হাসপপাতালে কুষ্ঠরোগের চিকিৎসার সুযোগ রয়েছে। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশকে কুষ্ঠমুক্ত করে তোলা সম্ভব।

 

বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের হলরুমে  সাংবাদিকদের সাথে কুষ্ঠরোগ বিষয়ক এক মতবিনিময় সভায় একথা বলেন আয়োজকরা । তারা আরও বলেন বাংলাদেশকে কুষ্ঠমুক্ত ঘোষণা করেছে সরকার। এই লক্ষ্যে পৌছাতে সরকারি ও বেসরকারি সংস্থাসমূহ একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। এজন্য নীলফামারিতে একটি ১৩০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল স্থাপন করা হয়েছে।

 

স্বাস্থ্য পরিচালক সাজ্জাদুর রহিম পান্থর সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. তৌহিদুর রহমান। এতে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি আবুল কালাম আজাদ , ডা. আরিফুজ্জামান শুভ, সেলিম শেখ, নোয়েল টপ্প প্রমুখ।

 

মতবিনিময় সভায় সাতক্ষীরার চারজন কুষ্ঠরোগীকে হাজির করে বলা হয় সাতক্ষীরা  জেলায় এ যাবত ৯ জন কুষ্ঠরোগীর সন্ধান পাওয়া  গেছে। তবে গত পাঁচ বছেরে নতুন কোনো কুষ্ঠরোগীর সন্ধান মেলেনি।

 

মতবিনিময় সভায় বলা হয় দেশে কুষ্ঠরোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এক পরিসংখ্যানে বলা হয় বাংলাদেশে ২০১৩ সালে ৩০৮৭, ২০১৪ সালে ৩৬২১, ২০১৫ সালে ৩৯৭৬ এবং ২০১৬ সালে ৩০০১ জন কুষ্ঠরোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে । তারা যথাযথ চিকিৎসাও গ্রহন করেছেন বলে জানানো হয়।

 

মতবিনিময় সভায় আরও বলা হয় ১৯৯০ সালে দেশে পাঁচ হাজার কুষ্ঠরোগীর সন্ধান মেওলে। এরপর সরকার ১৯৯৮ সালে বাংলাদেশকে কুষ্ঠমুক্ত দেশ ঘোষণা করে। কুষ্ঠ রোগের লক্ষ্মণ তুলে ধরে বক্তারা বলেন শুরুতেই চিকিৎসা গ্রহণ করলে রোগ সেরে যায়। এতে আতংকিত হবার কিছু নেই জানিয়ে বক্তারা বলেন এ ব্যাপারে জনসচেতনতা সৃষ্টি করাটাই জরুরি। কুষ্ঠরোগ মৃদু সংক্রামক বলেও উল্লেখ করেন তারা।

 

মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সুভাষ চৌধুরী, সাবেক সাধারন সম্পাদক মিজানুর রহমান, মোজাফফর রহমান, মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জ্বল, রুহুল কুদ্দুস প্রমুখ।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এমএকে