ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষ দাসত্বের বেড়াজালে



বাংলা রিপোর্ট ডেস্ক

 

বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষ দাসত্বের বেড়াজালে বসবাস করছেন। বাংলাদেশের পোশাকখাতেও আধুনিক দাসত্বের প্রভাব রয়েছে৷ এছাড়া চিংড়ি চাষ এবং শুঁটকি উৎপাদনের ক্ষেত্রেও এটা লক্ষ্য করা যায়৷ যৌনকর্ম, বাল্যবিবাহের ক্ষেত্রেও দাসত্বের ছাপ স্পষ্ট৷ জরিপে দেখা যাচ্ছে, জোরপূর্বক যৌনকর্মে বাধ্য করার ঘটনা ঘটেছে ৩ লাখ ৯০ হাজার মানুষের ক্ষেত্রে৷ এদের মধ্যে অনেক মেয়েরই বয়স ছিল ৯ থেকে ১০ বছর৷

 

 

আধুনিক দাসত্বের মধ্যে বসবাস করছেন ১৫ লাখ ৩১ হাজার ৩০০ মানুষ। গ্লোবাল স্লেভারি ইনডেক্স-২০১৬ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১১ নম্বরে। অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশন পরিচালিত জরিপে এ তথ্য ওঠে এসেছে। বিশ্বের ১৬৭টি দেশের ওপর ওই সূচক প্রণয়ন করা হয়েছে।

 

 

ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বে এখন চার কোটি ৫০ লাখেরও বেশি মানুষ বসবাস করছে আধুনিক দাসত্বের অধীনে। এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশগুলোতে এ সংখ্যা প্রায় তিন কোটি। তার মধ্যে শীর্ষে ভারত। দেশটিতে এমন মানুষের সংখ্যা এক কোটি ৮৩ লাখ ৫৪ হাজার ৭০০।

 

 

পাকিস্তানে ২১ লাখ ৩৪ হাজার ৯০০। ইন্দোনেশিয়ায় ৭ লাখ ৩৬ হাজার ১০০। মিয়ানমারে ৫ লাখ ১৫ হাজার ১০০। থাইল্যান্ডে ৪ লাখ ২৫ হাজার ৫০০। জাপানে ২ লাখ ৯০ হাজার ২০০। নেপালে ২ লাখ ৩৪ হাজার ৬০০। মালয়েশিয়ায় ১ লাখ ২৮ হাজার ৮০০। শ্রীলঙ্কায় ৪৫ হাজার ৫০০ মানুষ।

 

 

আধুনিক দাসত্বের শিকার মানুষদের মধ্যে অর্ধেকের বাস এশিয়ার পাঁচটি দেশে। এসব দেশ হল ভারত, চীন, পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও উজবেকিস্তান। কোনো মানুষ যখন হুমকি, সহিংসতা, জুলুম, ক্ষমতার অপপ্রয়োগ অথবা প্রতারণার মতো পরিস্থিতির শিকার হয় এবং তা পরিহার করতে পারে না- এমন অবস্থাকে আধুনিক দাসত্ব হিসেবে আখ্যায়িত হয়।

 

 

ওয়াক ফ্রি ফাউন্ডেশনের সূচকে দেখা গেছে, বাংলাদেশে জোর করে বিয়ে দেয়ার চেয়ে জোর করে শ্রমে নিয়োজিত করার প্রবণতা অনেক বেশি। এখানে জোর করে শ্রমে নিয়োজিত করা হয় শতকরা ৮০ ভাগ শ্রমিককে। জোর করে বিয়ে দেয়ার হার শতকরা ২০ ভাগ। সাধারণ শ্রমে শতকরা ২৪ ভাগ, নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে শতকরা ২২ ভাগ, ওষুধ উৎপাদন খাতে শতকরা ১৩ ভাগ ও কৃষিকাজে শতকরা ১১ ভাগ মানুষকে জোর করে কাজে বাধ্য করা হয়।

 

 

বাংলা রিপোর্ট/এফএম