ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

আগামী বাজেটে কালো টাকা পাচার রোধে ব্যবস্থা নেয়া হবে



অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, “জমি কেনাবেচায় অপ্রদর্শিত অর্থই কালো টাকার অন্যতম উৎস। পরবর্তীতে এ কালো টাকা তারা বিদেশে পাচার করে। তাই পাচার বন্ধে আগামী বাজেটে জমির সর্বনিম্ন নির্ধারিত মূল্য পদ্ধতি তুলে দেওয়া হবে।”

শনিবার সচিবালয়ের অর্থমন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ইকোনোমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) সঙ্গে প্রাক বাজেট আলোচনায় অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে মুহিত বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে রেমিটেন্স কমে যাওয়ার বিষয়টি সবার নজরে পড়েছে। রেমিটেন্স দেশের অর্থনীতির জিডিপিতে বিশেষ ভূমিকা রাখছে। এটা বাড়াতে প্রবাসী যারা রেমিটেন্স পাঠান এর খরচ যাতে না লাগে, সে বিষয়ে সরকার একটা পদক্ষেপ নিচ্ছে- আগামী বাজেটেই এর একটা নির্দেশনা থাকবে।

ভ্যাট প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, এক পারসেন্ট ভ্যাট কমলে সরকারের রাজস্ব ক্ষতি হবে প্রায় চার হাজার কোটি টাকা। নতুন ভ্যাট আইনে ভ্যাটের হার কী হবে সেটা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে নির্ধারণ করা হবে।

উক্ত প্রাক বাজেট আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন ইকোনোমিকস রিপোর্টার্স ফোরামের সভাপতি বিলাল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে সংগঠনের বর্তমান ও সাবেক প্রতিনিধিসহ রিপোর্টাররা ,অর্থসচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর ফজলে কবীর, এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান প্রমুখ।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এ,এইচ