ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 5 months ago

উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বৌদ্ধ পূর্ণিমা পালিত



ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বুধবার রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব বৌদ্ধ পূর্ণিমা পালিত হয়েছে।

এ উপলক্ষে রাজধানীসহ দেশজুড়ে বৌদ্ধ বিহারগুলোতে বুদ্ধ পূজা, প্রদীপ প্রজ্বলন, শান্তি শোভাযাত্রা, ধর্মীয় আলোচনাসভা, প্রভাত ফেরি, সমবেত প্রার্থনা, আলোচনা সভা ও বুদ্ধ পূজা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও মানব জাতির সর্বাঙ্গীণ শান্তি ও মঙ্গল কামনায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

গৌতম বুদ্ধের শুভজন্ম, বোধিজ্ঞান ও নির্বাণ লাভ এই ত্রিস্মৃতি বিজড়িত বৈশাখী পূর্ণিমা বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব। বিশ্বের সকল বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে এটি বুদ্ধপূর্ণিমা নামে পরিচিত।

বৌদ্ধ ধর্ম মতে, আজ থেকে আড়াই হাজার বছর আগে এই দিনে মহামতি গৌতম বুদ্ধ আবির্ভূত হয়েছিলেন। তাঁর জন্ম, বোধিলাভ ও মহাপ্রয়াণ বৈশাখী পূর্ণিমার দিনে হয়েছিল বলে এর (বৈশাখী পূর্ণিমা) অপর নাম দেয়া হয় ‘বৌদ্ধ পূর্ণিমা’।

‘জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক’ এই অহিংস বাণীর প্রচারক গৌতম বুদ্ধের আবির্ভাব, বোধিপ্রাপ্তি আর মহাপরিনির্বাণ – এই স্মৃতিবিজড়িত এই দিনটিকে বুদ্ধ পূর্ণিমা হিসাবে পালন করেন বুদ্ধ ভক্ত।

দিবসটি উপলক্ষে বুধবার সকালে রাজধানীর সবুজবাগে ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে প্রভাত ফেরি ও শান্তি শোভাযাত্রার আয়োজন করে বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘ। এতে অংশ নেন হাজারো বুদ্ধ ভক্তরা। বুদ্ধের বাণীকে ধারণ করে মৈত্রী ও করুণায় সিক্ত হবে মানবতা, এমন আহ্বান সম্প্রদায়ের নেতাদের।

বৌদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে রাজধানীর বাসাবোর ধর্মরাজিক বৌদ্ধ বিহারে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ প্রধান অতিথি ছিলেন।

বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের সভাপতি শুদ্ধানন্দ মহাথেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন ঢাকা-৯ আসনের সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী। এছাড়াও সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া ও ঢাকায় নিযুক্ত থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত পানপিমন সুওয়ানাপংস বক্তব্য রাখেন।

এদিকে বৌদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে বুধবার সকালে জাতীয় জাদুঘরের সামনে বাংলাদেশ বৌদ্ধ সাংস্কৃতিক পরিষদ ‘শান্তি শোভাযাত্রা ও সম্প্রীতি উৎসব-২০১৭’ এর আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের স্পিকার ও সিপিএ নির্বাহী কমিটির চেয়ারপার্সন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে ধর্ম বিষয়কমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান শান্তি শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন।

এছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর ঊ শৈ সিং এমপি, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়–য়া, বৌদ্ধ কল্যাণ ট্রাস্টের সভাপতি নির্মল রোজারিও, আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়–য়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশন রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। সারা দেশের ন্যায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, সিলেটেও নানা আয়োজনে দিনটি উদযাপন করেন বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা। প্রার্থনায় বিশ্বময় শান্তি, সমৃদ্ধি আর মঙ্গল কামনার পাশাপাশি ঠাঁই পায় সাম্প্রতিক দুর্যোগ থেকে পরিত্রাণের আকাঙ্খা।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এমএকে