ব্রেকিং নিউজঃ

মর্যাদার লড়াইয়ে আবাহনীর জয়  ***  ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আওয়ামী লীগ নেত্রীকে কুপিয়ে হত্যা  ***  রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য ছাদহীন খোলা কারাগার, দশকের পর দশক ধরে প্রাতিষ্ঠানিক বর্ণবাদের শিকার এই বাসিন্দারা-অ্যামনেস্টি  ***  জিম্বাবুয়ের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসাবে শুক্রবার শপথ নিতে যাচ্ছেন দেশটির সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট এমারসন নাঙ্গাগওয়া  ***  চট্রগ্রাম বিমানবন্দরে সাড়ে তিন কেজি স্বর্ণসহ এক যাত্রী আটক  ***  সরকার দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছে- মির্জা ফখরুল  ***  মানবতাবিরোধী অপরাধে বসনিয়ার ‘সাক্ষাৎ শয়তান’ রাতকো ম্লাদিচের যাবজ্জীবন  ***  দ. কোরিয়ায় পালাতে গিয়ে সহকর্মীদের গুলিতে নিহত উ. কোরীয় সৈনিক  ***  জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ন্যানগাওয়ের শপথ শুক্রবার, আজ রাতে পালাতে পারেন মুগাবে  ***  কুড়িগ্রামে মৌমাছির কামড়ে ৩৭ জন শিক্ষার্থীসহ আহত অর্ধশতাধিক
Published: 5 months ago

সহায়ক সরকারের দাবিতে জনমত গঠনের চেষ্টায় বিএনপি



নিজস্ব সংবাদদাতা:

বিগত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রতিহত বা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দাবির আন্দোলনে জনসম্পৃক্ততা ঘটাতে না পারলেও এবার সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দাবিতে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে দেশের অন্যতম প্রধান বিরোধীদল বিএনপি।

 

এ লক্ষ্যে ঈদুল ফিতরের পর থেকে দলটির পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রচারণার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সম্প্রতি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া জাতির সামনে যে ভিশন- ২০৩০ উপস্থাপন করেছেন। সেটিই হচ্ছে বিএনপির সহায়ক সরকার দাবির আন্দোলনে জনসম্পৃক্ততার মূল ভিত্তি। দেশের সকল জনগোষ্ঠিকে বিএনপির আন্দোলনে একত্রিত করতে রয়েছে দলটির জোর প্রয়াস।
বিএনপির প্রচারণার মধ্যে যে বিষয়গুলো বিশেষভাবে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে-প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির মধ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য করা, সবার জন্য বিনামূল্যে অনার্স পর্যন্ত পড়ালেখা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ফ্রি ৪জি সুবিধা প্রদান, জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জঙ্গিবাদের মূলোৎপাটন করা, ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য কার্যকরভাবে স্বাধীন বিভাগ তৈরি করা, সামাজিক ও অর্থনৈতিক বৈষম্য দূরীকরণে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ, সবার জন্য বিদ্যুৎ ও জ্বালানীর ন্যায্য হিস্যা নিশ্চিত করা, নিম্ন আদালতকে প্রশাসনের খপ্পর থেকে বের করে উচ্চ আদালতের অধীনে নিয়ে আসা, সব উন্নয়ন কাজে জনকল্যাণ ও জনসম্পৃক্ততা নিশ্চিত করা, মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান ও মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য স্বচ্ছতার সাথে একটি অভিন্ন মুক্তিযোদ্ধা তালিকা তৈরি ও প্রকাশ, বাংলাদেশকে একটি সুখী, সমৃদ্ধ, আধুনিক ও আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে গড়ার জন্য জন উদ্যোগ ও জনউদ্যম বিরোধী যাবতীয় বাধা দূর করা, সংবিধানে গণভোট ব্যবস্থা পুনপ্রবর্তন, বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে রাজনৈতিক ও সামাজিক বিভাজনের অবসান ঘটানো, গণতান্ত্রিক ও অর্থনৈতিক সুশাসনের জন্য সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান (নির্বাচন কমিশন, পাবলিক সার্ভিস কমিশন, কন্ট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল, এটর্নি জেনারেল) পুন: প্রতিষ্ঠার জন্য আইনি ও প্রক্রিয়াগত পদক্ষেপ, বিশেষ ক্ষমতা আইন ১৯৭৪ বাতিল, মানবাধিকার সম্পর্কিত জাতিসংঘের সার্বজনীন ঘোষণা বাস্তবায়ন, বিচার ব্যবস্থার সংস্কারের জন্য উচ্চ পর্যায়ের জুডিশিয়াল কমিশন গঠন, পুলিশ বাহিনীকে একটি স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক সমাজের উপযোগী করে গড়ে তোলা, পুলিশের কনস্টেবল/ট্রাফিক পুলিশ, এবং এএসআই পর্যন্ত নিম্নপদস্থ পুলিশ কর্মকর্তাদের মাঠপর্যায়ে একটানা ৮ ঘণ্টার বেশি ডিউটি দায়িত্ব পালনে বাধ্য না করা, ঝুঁকিপূর্ণ দায়িত্ব পালনের জন্য ঝুঁকিভাতা এবং ৮ ঘণ্টার অতিরিক্ত সময় দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে কর্মঘণ্টা হারে যুক্তিসংগত ওভার-টাইম ভাতা প্রদান, এএসআই থেকে কনস্টেবল পর্যন্ত পুলিশের আবাসন সমস্যার সমাধানে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, দ্রব্যমূল্যের সাথে সঙ্গতি রেখে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন ভাতাদি ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি, দেশবাসীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য পুলিশ জনপ্রশাসনের ব্যাপক সংস্কার, যোগ্য ব্যক্তিকে যোগ্য পদে নিয়োগ, দলীয় আনুগত্যের সংকীর্ণতা থেকে বেরিয়ে মেধা, সততা, দক্ষতা, যোগ্যতা, দেশপ্রেম, নীতিবোধ ও বিচার ক্ষমতার ওপর নির্ভর করে জনপ্রশাসনকে পুনর্বিন্যাস করা, স্বাধীন সার্বভৌম দেশের রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা ও অখণ্ডতা সুরক্ষার লক্ষ্যে প্রতিরক্ষা বাহিনীকে আধুনিক প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তি ও সমর-সম্ভারে সুসজ্জিত, সুসংগঠিত, যুযোগপযোগী এবং সর্বোচ্চ দেশপ্রেমের মন্ত্রে উজ্জীবিত করে গড়ে তোলা, বৈদেশিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে জাতীয় স্বার্থকে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দেয়া, মুসলিম উম্মাহ ও প্রতিবেশি দেশসমূহের সাথে বিশেষ সম্পর্ক গড়া, শিক্ষকদেরকে মানবিক, সহিষ্ণু, ন্যায়নুগ, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং সমতাভিত্তিক সমাজ সৃষ্টির সঠিক ও যথাযথ চেতনায় উদ্বুদ্ধ করা, বাস-ট্রেনে-লঞ্চে বিনা ভাড়ায় প্রতিবন্ধীদের যাতায়াতের বিধান করা, মুক্তিযোদ্ধাদের ‘রাষ্ট্রের সম্মানিত নাগরিক’ হিসেবে ঘোষণা, সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ ও উগ্রবাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ, এক দশকের মধ্যে নিরক্ষতা দূর করা, তথ্য প্রযুক্তি খাতকে বিশেষ অগ্রাধিকার দেয়া, খেলাধূলায় আন্তর্জাতিক মান অর্জন প্রতি জেলায় আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর ক্রীড়া একাডেমি প্রতিষ্ঠা করা, তথ্য প্রযুক্তি আইনের বিতর্কিত ৫৭ ধারা বাতিল, সৎ সাংবাদিকতার পরিবেশ পুনরুদ্ধার, চাঞ্চল্যকর সাগর-রুনি হত্যাসহ সকল সাংবাদিক হত্যার বিচার নিশ্চিত, সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে রুজুকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, গরিব এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগকবলিত কৃষকের কৃষি ঋণের সুদ মওকুফ, ভেজাল প্রতিরোধে, বিশেষ করে খাদ্যে ও ওষুধে ভেজাল রোধে আইনি ব্যবস্থার কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করা, সবার জন্য স্বাস্থ্যসেবা সহজলভ্য করার নিমিত্তে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা চালু করা, যুব, নারী ও শিশুদের জীবন বিকাশের চাহিদার নিরিখে যথোপযুক্ত উন্নয়ন কৌশল গ্রহণ করা, জাতীয় উন্নয়নে যুব, নারী ও শিশুদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা, হাওড় ও পাহাড়ি এলাকা এবং বন্যা প্রবণ এলাকাগুলোতে বন্যা প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ, আন্তর্জাতিক নদী আইন অনুযায়ী বাংলাদেশে বহমান নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা আদায় করা, কাঙ্খিত ডবল ডিজিট প্রবৃদ্ধির চাহিদা পূরণের জন্য ২০৩০ সাল নাগাদ বিদ্যুতের আনুমানিক চাহিদা ৩৫ হাজার মেগাওয়াট বিবেচনায় নিয়ে যথোপযুক্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন করা, শিল্প খাতের বিকাশে বিনিয়োগবান্ধব নীতি প্রণয়ন করে দেশি-বিদেশী বিনিয়োগ উৎসাহিত করা, দেশের যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নে রেল ও নৌপথের ওপর অধিকতর গুরুত্বারোপ করা, সড়ক রেল ও নৌ পথের প্রয়োজনীয় সংস্কার, ও উন্নয়নের মাধ্যমে সারাদেশে সমন্বিত বহুমাত্রিক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা, এশিয়ান হাইওয়ে এবং ঢাকা-কুনমিং রেল ও সড়ক যোগাযোগসহ আঞ্চলিক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার উদ্যোগ নেয়া, দেশের বিভিন্ন উপযুক্ত স্থানে ‘এথেনিক ট্যুরিজম’ এবং ‘ওয়াটার ট্যুরিজম’ চালু করা, পাহাড়ি ও সমতলের ক্ষুদ্র জাতি- গোষ্ঠীর জীবন, সম্পদ, সম্ভ্রম ও মর্যাদা সুরক্ষা করা, দল মত ও জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ক্ষুদ্র-বৃহৎ সকল জাতি গোষ্ঠির সংবিধান প্রদত্ত সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও ধর্মকর্মের অধিকার এবং জীবন, সম্ভ্রম ও সম্পদের পূর্ণ নিরাপত্তা দেয়া।
বিএনপির নীতিনির্ধারকরা মনে করছেন, এসব ইস্যুতে এবার তারা তাদের সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন দাবির আন্দোলনে ব্যাপক জনসম্পৃক্তা ঘটিয়ে তাদের আন্দোলন সফল করবেন। এবং অবাধ, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে আগামীতে তারাই সরকার গঠন করবেন।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এএইচ