ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

কুনমিং বাংলাদেশের আরো পর্যটক-শিক্ষার্থী চায়



চীনের ইউনান প্রদেশের রাজধানী কুনমিং কর্তৃপক্ষ কুনমিংয়ে আরো বাংলাদেশী পর্যটক ও শিক্ষার্থীদের আশা করছে। কুনমিং মিউনিসিপাল পিপলস গভর্নমেন্ট’র ভাইস মেয়র লী জিগং বলেন, ‘বাংলাদেশ থেকে কুনমিংয়ে আমরা আরো বাংলাদেশী পর্যটক ও শিক্ষার্থী আশা করছি। খবর বাসস।

বিশ্বজুড়ে নগরগুলোর সঙ্গে কুনমিংয়ের সহযোগিতা বিষয়ক সেমিনারের ফাঁকে বাসস’র সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি সহযোগিতার ক্ষেত্র কাজে লাগানো এবং বহুমুখী স্বার্থ নিশ্চিত করতে এক দেশের সঙ্গে অন্য দেশের জনগণের পারস্পরিক যোগাযোগের ওপর জোর গুরুত্বারোপ করেছেন।

চীনের পর্যটক ভিসা পাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ পত্র সরবরাহের শর্তের ব্যাপারে মনোযোগ আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, কুনমিং একটি প্রাণোচ্ছ্বল নগরী এবং পর্যটকরা যে কোন সময় নগরী এবং ইউনান প্রদেশ ভ্রমণ করতে পারেন, তিনি স্বীকার করেন যে, ভিসা বিশেষ করে টুরিস্টদের জন্য আরো সহজ করতে হবে।
স্ট্যান্ডিং কমিটি অব কুনমিং মিউনিসিপ্যাল সিপিসি কমিটির সদস্য ও ভাইস মেয়র বলেন, আন্তঃসীমান্ত জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানোর সুযোগ সৃষ্টি এবং ভিসা প্রক্রিয়া আরো সহজ করার জন্য আমরা কেন্দ্রীয় সরকারকে চাপ দিচ্ছি।

চট্টগ্রামের সঙ্গে কুনমিংয়ের বিদ্যমান সহযোগিতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বন্দরনগরী চট্টগ্রাম ইতোমধ্যেই কুনমিংয়ে অন্যতম ‘সিস্টার সিটি’র হিসেবে গড়ে উঠেছে। এখন চীনের এলাকা ও সড়ক সংযোগ উদ্যোগের উন্নয়নসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অব্যাহত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত করতে হবে।
ঝিগং বলেন, সিস্টার সিটির ধারণার আওতায়ই আমরা চট্টগ্রাম থেকে এখানে শিক্ষার্থী বিনিময় করেছি। এখনো অনেক সম্ভাবনাময় এলাকা কাজে লাগানো হয়নি।
তিনি বিশ্বাস করেন, বিসিএমআই (বাংলাদেশ, চীন, মায়নমার ও ভারত) অর্থনৈতিক করিডোরের বৃহত্তর সম্প্রসারণে চীন ও বাংলাদেশের সম্পর্ক গভীরতর হবে।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এএইচ