ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 1 month ago

আদার অসাধারণ গুণাগুণ



বাংলা রিপোর্ট ডেস্ক:

প্রকৃতিতেই পাওয়া যায় সব রোগের নিরাময়। শুধু জানলে আর মানলেই অনেক রোগের আক্রমণ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তবে আদার ঔষধি গুণাগুণ সম্পর্কে প্রায় সকলেই কমবেশি অবগত আছেন।

 

শারীরিক নানা সমস্যায় আদা খাওয়ার বিষয়টি বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে আজকাল। প্রতিনিয়ত আদা খাওয়ার অভ্যাস নানা প্রকার রোগ থেকে মুক্তি দিতে পারে মানুষকে।

 

নিয়মিত আদা খাওয়ার অভ্যাস করেই দেখুন না, শারীরিক অনেক সমস্যার সমাধান পাবেন খুব সহজেই। এজন্য আদার গুণাগুণ এবং শারীরিক সমস্যা নিরাময়ে আদার ব্যবহার সকলেরই জেনে রাখা অত্যন্ত জরুরী।

মসলা হিসেবে আদার ব্যবহার সব খাবারকেই সুস্বাদু করে, চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক অসাধারণ আদার কিছু ওষুধি গুণাগুণ।

 

** বমিভাব বা বমি হচ্ছে অনেক? আদা কুচি করে চিবিয়ে খান অথবা আদার রসের সাথে সামান্য লবণ মিশিয়ে পান করুন ঠিকমত। তাৎক্ষণিক সমাধান পাওয়া যাবে।

 

** নতুন আদার সাথে আধা সেদ্ধ ডিম খাওয়ার অভ্যাস পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং স্পার্ম কাউন্ট  বাড়ায়।

 

** গর্ভধারণের প্রথম দিকে গর্ভবতী মায়ের শরীর সকালবেলা খারাপ লাগার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এ সময়ে অল্প অল্প কাঁচা আদা খাওয়ার অভ্যাস করলে শরীরের স্বাভাবিক অবস্থা ভালো থাকে।

 

** আদা খেলে শরীরের অতিরিক্ত ঘামের সমস্যা সমাধানে আসে এবং এতে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেশিয়াম ও জিঙ্ক রয়েছে যা শরীরের রক্তপ্রবাহ স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে থাকে।

 

** যারা গলার চর্চা করেন থাকেন, গলা পরিষ্কার রাখার জন্য আদা আর লবণ অনেক উপকারী।

 

** বাতব্যথা একটি নিত্য সমস্যা, বিশেষ করে আমবাত হলে- ১চা চামচ আদার রস সাথে ১০ গ্রাম পুরনো আখের গুঁড় মিশিয়ে প্রতিদিন রোজ সকালে ১ বার করে খেলে ১ মাসের মধ্যে ভাল কিছু আশা করা যায়।

 

** ক্লান্ত মাংসপেশি ও শীতে ত্বকের চিকিৎসায় জন্য, রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখতে আদার রসের ভূমিকা অতুলনীয়।

গরম পানিতে ৪ চামচ আদাকুচি দিয়ে ফুটিয়ে নিন। সেই পানিতে গোসল করলে ক্লান্ত মাংশপেশি, কুচকে যাওয়া ত্বক ও রক্ত সঞ্চালন ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে আসছে।

 

 **আদায় রয়েছে ক্যানসার প্রতিরোধক উপাদান। এটি কোলনের ক্যানসার কোষ ধ্বংস করতে সাহায্য করে থাকে। আদা ওভারির ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়াই করে।অতএব আদা ক্যান্সার এর অনেক ভালো প্রতিরোধক।

 

** অপারেশনের পর কাঁচা আদা খান। তাহলে দ্রুত সুস্থতা লাভ করা সম্ভব হবে।

 

**অনেক সময় ভাজাপোড়া খাবারের কারণে বুকজ্বলার সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে। ২ কাপ পানিতে ২ ইঞ্চি আদা ছেঁচে জ্বাল দিয়ে চায়ের মতো তৈরি করে পান করুন।

দেখবেন আপনার বুকজ্বলা কমে যাবে।তাই আসুন, আল্লাহর অশেষ মেহেরবান মহৌষধ আদার সুষ্ঠু ব্যবহার করে দৈনন্দিন জীবনে সুস্থতার ধারা অব্যাহত রাখি।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/আইএইচ