ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 5 months ago

টিসিবির ৪টি পন্য কিনতে পারবে গ্রাহকরা



নিউজ ডেস্ক

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আগামী ১৫ মে থেকে ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রি শুরু করছে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। সরকারি এ প্রতিষ্ঠান থেকে এবছর প্রয়োজনীয় ৪টি পণ্য কিনতে পারবে গ্রাহকরা। তবে গত বছরে টিসিবির পণ্য কালো বাজারের বিক্রির ঘটনা যদি এবছরেও ঘটে তাই উদ্বিগ্ন গ্রাহকরা। এ বছর খোলা বাজারের তুলনায় প্রায় ১০ থেকে ১৫ টাকা কম মূল্যে বিক্রি হবে ছোলা, চিনি, ডাল ও তেল।

খুলনা টিসিবির আঞ্চলিক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, রমজানকে সামনে রেখে খুলনা বিভাগের দশ জেলা এবং গোপালগঞ্জ, পিরোজপুর, ফরিদপুর ও রাজবাড়ী জেলায় ২৫০ মেট্রিক টন চিনি, ১ লাখ ৯৫ হাজার লিটার সয়াবিন তেল, ৩০০ মেট্রিক টন ছোলা ও ৩০০ মেট্রিক টন মশুর ডাল বিক্রি করবে টিসিবি। তবে আমদানী না থাকায় এ বছরও খেজুর বিক্রি করছে না টিসিবি। এ উপলক্ষে ইতোমধ্যে খুলনার গুদামে পণ্য মজুদ শুরু হয়েছে। এ চার পণ্যের দর নির্ধারণ করেছে সরকার চিনি ৫৫ টাকা, ছোলা ৭০ টাকা, ডাল ৮০ টাকা ও সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৮৫ টাকায়।

খুলনার বাজারগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্তমানে বাজারে চিনি ৭২ টাকা, ছোলা ৮৮, ডাল ১১০ ও সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১০৪ টাকায়। খোলা বাজারের এ যখন অবস্থা তখন ন্যায্যমূল্যে সরকারের এসব পণ্য কালোবাজারে বিক্রির আশঙ্খা করছেন গ্রাহকরা। গত বছর ৬ সেপ্টেম্বর টিসিবির পণ্য কালোবাজারে বিক্রির সময় ডিলারসহ সাতজনকে গ্রেফতার করে খুলনা জেলা প্রশাসনের তৎকালীন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলাম। এ সময় তাদের দোকান থেকে ১৮৪ বোতল সয়াবিন তেল এবং ১০ বস্তা চিনি জব্দ করা হয়।

রমজানের বাজারে দাম আরও বৃদ্ধির আশংকা করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা। নগরীর বড় বাজারের ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম বলেন, রোযার আগে সব ধরনের পণ্যের দাম বাড়ে। সে হিসেবে এ বছরও বৃদ্ধির আশংকা করছেন তিনি। খুলনা জেলা বাজার কর্মকর্তা আবদুস সালাম তরফদার বলেন, সরকারের ন্যায্য মূল্যের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি প্রতিরোধ এবং টিসিবির পণ্য বিক্রি মনিটরিং করবেন তারা।

টিসিবির খুলনা আঞ্চলিক কর্মকর্তা রবিউল মোর্শেদ বলেন, রমজান উপলক্ষে টিসিবির গুদামে পণ্য আসতে শুরু করেছে। কালোবাজারি রোধেও কঠোর নজরদারি রাখা হবে। কালোবাজারে বিক্রি করা হলে প্রয়োজনে ডিলারদের লাইসেন্সও বাতিল করা হবে।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এইচআর