ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্যে কম্পিউটার প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই



সর্বক্ষেত্রে ব্যবহৃত এ কম্পিউটার আপনাকে  নিয়ে যাবে অনেক দূরে।  সুতরাং ভর্তি হতে পারেন কম্পিউটারের নানা ধরনের কোর্সে।

 

শিক্ষার্থী বন্ধুরা, প্রস্তুতি নেয়ার এখনই উপযুক্ত সময়। কঠিন প্রতিযোগিতার এ বিশ্বে তোমাদের অবস্থান। কেবল জীবন সিঁড়ির প্রথম ধাপ অতিক্রম করতে যাচ্ছ। সামনে রয়েছে অনেক পথ, অনেক বাধা। এ পথ মাড়িয়ে প্রতিযোগিতার বিশ্বে টিকে থাকতে প্রস্তুতির শেষ নেই। এ অবসর সময়ই হোক তোমাদের সময়োপযোগী প্রস্তুতির সিঁড়ি।

 

কম্পিউটার অফিস অ্যাপ্লিকেশন কোর্স : ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক, অফিসিয়াল ও বাণিজ্যিক কাজ করার জন্য এ কোর্সটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, বেসরকারি ও বড় কোনো কোম্পানি কিংবা বিদেশে চাকরি করার জন্য এ কোর্সটি শিখে রাখুন এবং সময়মতো কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে রেজিস্ট্রেশন করে চূড়ান্ত পরীক্ষার মাধ্যমে উত্তীর্ণ হওয়া সাপেক্ষে বোর্ডপ্রদত্ত সার্টিফিকেট গ্রহণ করুণ।

 

ডাটাবেজ প্রোগ্রামিং কোর্স : সরকারি-বেসরকারি স্কুল/কলেজের প্রশিক্ষক/প্রভাষক পদে চাকরির দরখাস্ত করতে, শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে কিংবা সরকারি-বেসরকারি ও বড় কোনো কোম্পানির প্রোগ্রামার হিসেবে চাকরি করার জন্য এ কোর্সটি আপনার শেখা উচিত। সেই সঙ্গে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড প্রদত্ত সার্টিফিকেট আপনার জীবন চলার পাথেয় হবে।

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন অ্যান্ড মাল্টিমিডিয়া : এ কোর্সটি শেখা থাকলে প্রকাশনা ও মুদ্রণ শিল্পে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে পারবেন। নিজেকে দক্ষ গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে গড়ে তুলতে পারবেন। কাজ করতে পারবেন টিভি চ্যানেলে। ওয়েবসাইট ডিজাইনের কাজ করতে এবং দেশ-বিদেশে ব্যক্তিগত, অফিসিয়াল ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন ডিজাইন করার জন্য কাজে লাগবে এই কোর্স। সরকারি, বেসরকারি কিংবা বড় কোনো কোম্পানিতে চাকরি করার জন্য এ কোর্সটি আপনি শিখে রাখতে পারেন। এক্ষেত্রেও কারিগরি শিক্ষা বোর্ড প্রদত্ত সার্টিফিকেট আপনার কাজে আসবে।

 

হার্ডওয়্যার অ্যান্ড নেটওয়ার্কিং : এই কোর্সটি শিখলে আপনি সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে, কম্পিউটার মেরামত কিংবা কম্পিউটার পার্টস তৈরি ও মেরামতকারী প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতে পারবেন। আর এ ক্ষেত্রে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সার্টিফিকেট আপনাকে সহায়তা করবে। ব্যস্ততার এই বিশ্বে কম্পিউটার ব্যবহারকারী কম্পিউটার মেরামত করার সময় পান না। আধুনিক সভ্যতার সর্বাধুনিক এ যন্ত্রটিতে যান্ত্রিক ক্রটি হতেই পারে। সফটওয়্যার ও যন্ত্রাংশ সম্পর্কে সাধারণ ক্রটি চিহ্নিতকরণ এবং নিজ হাতে নতুন ও পুরনো কম্পিউটার মেরামত করতে পারবেন এই কোর্সটি সম্পন্ন করে।

 

ভর্তির সময় : কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের প্রবিধান অনুসারে প্রতি ৩ বছর মেয়াদি ৪টি সেশনে এবং ৬ মাস মেয়াদি ২টি সেশনে ভর্তি হতে পারবেন।

 

৩ মাস মেয়াদি কোর্সে ভর্তির সময়সূচি:
১। জানুয়ারি-মার্চ সেশনে ভর্তির সময় : ১ জানুয়ারি থেকে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত। ২। এপ্রিল-জুন সেশনে ভর্তির সময় : ১ এপ্রিল থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত। ৩। জুলাই-সেপ্টেম্বর সেশনে ভর্তির সময় : ১ জুলাই থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত। ৪। অক্টোবর-ডিসেম্বর সেশনে ভর্তির সময় : ১ অক্টোবর থেকে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত।
৬ মাস মেয়াদি কোর্সে ভর্তির সময়সূচি:
১। জানুয়ারি-জুন সেশনে ভর্তির সময় : ১ জানুয়ারি থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। ২। জুলাই-ডিসেম্বর সেশনে ভর্তির সময় : ১ জুলাই থেকে ২০ আগস্ট পর্যন্ত। কোর্স ফি : ৩ মাস থেকে এক বছর ।

 

কোর্স ফি: প্রতিষ্ঠানভেদে ২৫০০ টাকা থেকে ৮০০০ টাকা।

কোথায় শিখবেন : যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, যুব উন্নয়ন অধিদফতর, ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের প্রধান প্রধান জেলা শহরে। বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, জেলাভিত্তিক মহিলা কম্পিউটার প্রশিক্ষণকেন্দ্র (১০টি) জাতীয় মহিলা সংস্থা। এছাড়া জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে রয়েছে অসংখ্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

 

কলসেন্টার প্রশিক্ষণ কোর্স : বিজ্ঞানের আর্শীবাদে তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নে সৃষ্টি হয়েছে নতুন নতুন পেশা। বর্তমানে আমাদের দেশে দেশী ও বিদেশীসহ ৭টি মোবাইল কোম্পানি রয়েছে। কলসেন্টারের জন্য গোটা বাংলাদেশেই জনশক্তি প্রয়োজন। বর্তমানে এ সেক্টরে প্রায় ৭ হাজার পদ খালি রয়েছে। এই অবসরে প্রশিক্ষণ নিয়ে তুমিও হতে পার কলসেন্টারের একজন দক্ষ কর্মী। বর্তমানে দেশে কলসেন্টারের জন্য অনেক প্রশিক্ষণ সেন্টার রয়েছে। চাইলে ভর্তি হতে পার এসব প্রশিক্ষণ সেন্টারে।

 

কোথায় শিখবে : বাংলাদেশ প্রফেশনাল ট্রেনিং ইন্সটিটিউট, বিপিটিআই ক্যাম্পাস, হাউজ-৩৩৫, লেন-২৩ ডিওএইচএস, মহাখালী, ঢাকা ইন্সটিটিউট অব কলসেন্টার টেকনোলজি, আইসিসিটি, তেজকুনি পাড়া, মহাখালী ইমাম নেটওয়ার্ক, মতিঝিল, ঢাকা মোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স : যোগাযোগের একটি সহজ ও গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম মোবাইল ফোন। মোবাইল ফোনের সহজলভ্যতা ও চাহিদার নিরিখে মোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং একটি বাস্তবধর্মী বিষয়। তাই বর্তমানে মোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স বেশ জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। মেয়াদ ও ফি : ২ মাস থেকে ১ বছর । কোর্স ফি ৩৫০০ থেকে ১০,০০০ টাকা।

 

কোথায় শিখবে : গ্রামীণ স্টার এডুকেশন, গ্রামীণ ব্যাংক, মিরপুর-২, ঢাকা জাতীয় যুব উন্নয়ন একাডেমি, মালিবাগ মোড়, ঢাকা গ্লোবাল স্টার ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট, যাত্রাবাড়ি, ঢাকা।

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এম/এম.