ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 1 week ago

ব্যাগে কুড়িয়ে পাওয়া নবজাতক, কান্না থামাতে বুকের দুধ খাওয়ালেন তরুণী!



বাংলা রিপোর্ট ডেস্ক :

নবজাতককে ব্যাগ থেকে বের করেই স্থানীয় বাসিন্দাদের ডাকেন মুস্তারি। শিশুটির গা মুছিয়ে তার কান্না থামাতে বুকের দুধ খাওয়ালেন তিনি। কুড়িয়ে পাওয়া সদ্যোজাতকে বুকের দুধ খাওয়ানো তরুণী পেশায় পরিচারিকা।

 

অন্যদিনের মতোই বুধবার বাগুইআটির দশদ্রোণের মালিবাগানের বাসিন্দা মুকুল দাসের বাড়িতে কাজ করছিলেন মুস্তারি বিবি। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাসন ধুতে গিয়ে তিনি সদ্যোজাতের কান্না শুনতে পান।

 

বাড়ির বাইরে বেরিয়ে দেখেন, পাশের ফাঁকা জমির কিনারায় পড়ে রয়েছে লাল রঙের একটি পোশাকের ব্যাগ। কান্নার আওয়াজ আসছে সেটির ভেতর থেকে। মুস্তারি জানান, ব্যাগের ভেতর উঁকি দিয়েই তিনি প্লাস্টিকে মোড়া সদ্যোজাতকে দেখেন। ছেলেটির নাড়ি ভালো করে কাটা হয়নি। সারা শরীরে রক্ত।

 

ওই সদ্যোজাতকে ব্যাগ থেকে বের করেই মুস্তারি গা মুছিয়ে তার কান্না থামাতে বুকের দুধ খাওয়ান। খবর পেয়ে ততক্ষণে ঘটনাস্থলে পৌঁছে বাগুইআটি থানার পুলিশ। উদ্ধার হওয়া শিশুটিকে বিধাননগর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

 

হাসপাতাল সূত্রের খবর, তিন কিলোগ্রাম ওজনের শিশুটি সুস্থ রয়েছে। চিকিৎসকদের অনুমান, মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে বাচ্চাটি প্রসব হয়েছিল।

 

মুস্তারির বাপের বাড়ি দশদ্রোণের তরফদার পাড়ায়। বিয়ে হয়েছে নারায়ণপুরে। কুড়িয়ে পাওয়া সদ্যোজাতকে বুকের দুধ খাইয়ে তাকেই মেয়ে হিসেবে চান বছর সাতাশের ওই তরুণী। তার নিজেরও একটি কন্যা-সন্তান রয়েছে। মালিবাগানের বাসিন্দা রশ্মি সিংহ, ময়না বন্দ্যোপাধ্যায়রা চান, বাচ্চাটি যেন একটা ভালো পরিবারে যায়।

 

প্রসঙ্গত, এভাবে চাইলেই অবশ্য কেউ অভিভাবকত্ব পাবেন না। সরকারি নিয়মে, শিশুকল্যাণ কমিটিকে চিঠি দিয়ে সদ্যোজাত উদ্ধারের কথা জানাবে পুলিশ। এরপর কমিটির নির্দিষ্ট করে দেয়া হোমে শিশুটিকে পাঠাবেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

 

দত্তকের প্রক্রিয়া শুরু হবে হোম থেকে। তবে সেসব পরের কথা। কীভেবে সদ্যোজাতকে কোলে তুলে নিয়েছিলেন মুস্তারি? তার উত্তর, মায়ের জান। ওই কান্নার আওয়াজ সহ্য করা যায়!

বাংলা রিপোর্ট/এমআর