ব্রেকিং নিউজঃ

মানবতাবিরোধী অপরাধে বসনিয়ার ‘সাক্ষাৎ শয়তান’ রাতকো ম্লাদিচের যাবজ্জীবন  ***  দ. কোরিয়ায় পালাতে গিয়ে সহকর্মীদের গুলিতে নিহত উ. কোরীয় সৈনিক  ***  জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ন্যানগাওয়ের শপথ শুক্রবার, আজ রাতে পালাতে পারেন মুগাবে  ***  কুড়িগ্রামে মৌমাছির কামড়ে ৩৭ জন শিক্ষার্থীসহ আহত অর্ধশতাধিক  ***  কুষ্টিয়ায় লিপু হত্যা : ২ আসামির মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত  ***  লেবাননের প্রধানমন্ত্রী হারিরির পদত্যাগ স্থগিত  ***  আগামী বছর ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে  ***  সরকার নিজের অপকর্মের দায় অন্যের ওপর চাপাচ্ছে: রিজভী  ***  সংসদ নির্বাচনে প্রয়োজনে সেনাবাহিনী নামানো হবে: ইসি শাহাদাত  ***  বিপিএল-এ দু’দিনের বিরতি; ২৪ নভেম্বর থেকে তৃতীয় পর্ব শুরু হবে চট্টগ্রামে
Published: 6 months ago

কংগ্রেস সদস্য হাউসে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিশংসন চাইলেন



বাংলা রিপোর্ট ডেস্ক:

টেভ্যাস প্রতিনিধি অ্যাল গ্রীণ প্রথম অফিসিয়ালি ডোনান্ড ট্রাম্পের অভিসংসন চাইলেন। একজন ডেমোক্রাটিক কংগ্রেসম্যান কংগ্রেসে স্পীকারেক উদ্দেশ্য করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিশংসন চান।

টেক্যাসের প্রতিনিধি অ্যাল গ্রীন কংগ্রেসে কলেন, আমি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিশংসন চাই, আমার এই অবস্থান থেকে আমি পিছপা হবোনা।

তিনি বলেন, “আমেরিকার জনগণ ভোটের দিন ব্যতিত গণতন্ত্র চর্চা করে না। আমি আমেরিকার জনগণের পক্ষে কথা বলেছি। এটি সময় বলার যে আমরা কোথায় দাঁড়িয়ে । এটি সময় আমাদের নিজেদেরকে জানবার।”

তিনি বলেন, আমি এখানে দাঁড়িয়েছি যারা আমাকে নির্বাচিত করেছেন তাঁদের প্রতি দায়িত্ববোধ থেকে। আমি এখানে দাঁড়িয়েছি এই দেশ সংবিধানের প্রতি দায়িত্বশীলতা থেকে। আমি দাঁড়িয়েছি আমেরিকার প্রেসিডেন্টের অভিশংসনের জন্য কারণ তিনি ন্যায় বিচারের প্রতি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছেন।”

 

মি. কোমি এক মোমো প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের হস্তক্ষেপ সংক্রান্ত বক্তব্য যা নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত হয়, যাতে প্রেসিডেন্ট কোমিকে পরামর্শ দেন, ওই সংবাদিককে গ্রেফতার করতে যিনি রাষ্ট্রের অতি গোপনীয় বিষয় প্রকাশ করে দেন।

সোমবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে মি. গ্রীন প্রেসিডেন্টকে অভিযুক্ত করেন যে, প্রেসিডেন্ট নির্বাচন কালে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ সংক্রান্ত তদন্তে বাধা দিয়েছেন, সুতারং তাকে বাহিষ্কার করা উচিত। তিনি পূর্বে বলেন অভিশংসন প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার কয়েক সপ্তাহ অপেক্ষা করবেন।

মি. গ্রীন বলেন, “এটা রাজনৈতিক বিষয় নয়, এটি আমাদের গণতন্ত্রকে রক্ষার জন্য।”

বুধবার সকালে সাবেক তিন প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা বলেন, মি. ট্রাম্প “অভিশংসন সীমায়” পৌঁছে গেছেন।

প্রেসিডেন্ট ক্লিনটন, রিগানে ও নিক্সনের যিনি উপদেষ্টা ছিলেন ডেভিড জর্জেন সিএনএনকে বলেন, ক্লিনটনের অভিশংসন প্রক্রিয়ার অবলোকন করার পর আমি মনে মনে চইতাম এখন আমি কারও জন্য দেখতে চাইনা। আমি মনে করি ট্রাম্প অভিশংসন সীমার মধ্যে এসে পড়েছেন। আমি মনে করি যে, ন্যায় বিচারে প্রতিবন্ধকতা ছিল প্রেসিডেন্ট নিক্সনের এর বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগ যে কারণে তাঁকে অভিশংসন কার হয়।

“তিনি বলেন, আমি অবসর প্রাপ্ত আইনজীবি। আমি আপনাদের সব আইনের সংজ্ঞা দিতে পারবো না কিন্তু আমি বলতে পারবো যে, মি. ট্রাম্প তদন্তে বাঁধা সৃষ্টি করেছেন, তিনি ক্ষমতা তাঁর পক্ষে ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন এবং কোমিকে তাঁর পক্ষে ব্যবহার করতে চান। কিন্তু কোমি তো আর খোকা নয়। সে কারণে তাঁকে ট্রাম্প বহিষ্কার করেন।

সুতারাং আমার মতে, প্রেসিডেন্ট অভিশংসনের ঝুঁকিতে রয়েছেন।

ইত্যবসরে বারাক ওবামার নির্বাচনী প্রচারনার ম্যানেজার ডেভিড এ্যাক্সেলড বলেন,“ আমি এখনও অভিশংসনের পক্ষে কথা বলতে চাইনা, কিন্তু কোমির মেমো যদি সত্যি হয়ে কোমি যদি নিরপেক্ষ হন তবে আমাদের নতুন কিছু ভাবার আছে।”

‘হাউস অভারসাইট কমিটি’ রিপাবলিকান চেয়ারম্যান এফবিআই কে মি. কোমি ও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কথোপকোথনের রেকর্ড ডকুমেন্ট প্রকাশ করার অনুরোধ করেছেন।

রিপাবলিকান প্রতিনিধি জ্যাসন চ্যাফেটজ একটি পত্রে এফবিআই’র নিকট জানতে চান প্রেসিডেন্ট কি সত্যিই মি. ফ্লিন বিষয়ক তদন্তে হস্তক্ষেপ করেছিলেন।

কোমির মোমা প্রকাশিত হবার পর মি. চ্যাফেটজ পত্রটি প্রেরণ করেন। তিনি পত্রে এফবিআইয়ের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক এণ্ড্য ম্যাককেবেকে, সকল স্মারক,  নোট, সারমর্ম ও রেকর্ড প্রকাশ করতে অনুরোধ করেন, যাতে কোমি ও ট্রাম্পের কথোপকোথন রয়েছে।

এক সপ্তাহ আগে এফবিআইকে সকল রেকর্ড সরবরাহ করতে অনুরোধ করা হয়।

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/  দ্যা ইন্ডিপেন্ডেন্টের অবলম্বনে/ রেজা আফসারী