ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 2 months ago

ইয়েমেনে ছড়িয়ে পড়েছে কলেরা, জরুরি অবস্থা জারি



বাংলা রিপোর্ট ডেস্ক:

যুদ্ধ বিধ্বস্ত ইয়েমেনে নতুন করে দেখা দিয়েছে কলেরার প্রকোপ। মৃত্যু হয়েছে অন্তত ১১৫ জনের। হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন আরো অন্তত সাড়ে আট হাজার মানুষ। রাজধানী সানায় জারি করা হয়েছে স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা।

দেশটিতে নিযুক্ত রেডক্রসের পরিচালক ডোমিনিক স্টিলহার্ট এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত ২৭ এপ্রিল থেকে ১৩ মে পর্যন্ত কলেরায় আক্রান্ত হয়ে অন্তত ১১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে প্রায় সাড়ে আট হাজার মানুষ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা কলেরার ভয়াবহ সংক্রমণ মোকাবিলা করছি। এক বছরের ব্যবধানে ইয়েমেনে কলেরা সংক্রমণের এটা দ্বিতীয় ঘটনা।’

জাতিসংঘের মতে, দেশটির দুই-তৃতীয়াংশ মানুষ সুপেয় পানির অভাবে ভুগছেন। অন্যদিকে লোহিত সাগরের বন্দর অবরুদ্ধ থাকায় যে কোনো সময়ের তুলনায় খাবার সরবরাহ কম আছে। দুর্ভিক্ষের মুখে রয়েছেন দেশটির অন্তত ১ কোটি ৭০ লাখ মানুষ। যা দেশটির মোট জনসংখ্যার ৭৫ শতাংশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, যুদ্ধের কবলে দেশটির অন্তত ৩০০টি হাসপাতাল ও ক্লিনিক ধ্বংস হয়ে গেছে। বর্তমানে ইয়েমেনের মাত্র ৪৫ শতাংশ হাসপাতাল জনগণকে স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছে। যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ২৬ মার্চ থেকে সৌদি নেতৃত্বাধীন দেশগুলো ইয়েমেনে ‘অপারেশন ডিসাইসিভ স্টর্ম’ নামে সামরিক অভিযান শুরু করে। দেশটির ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মানসুর হাদিকে পুনরায় ক্ষমতায় বসানোর জন্য ওই বিমান হামলা শুরু করে তারা। ইরান সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীদের সশস্ত্র আন্দোলনের মুখে ইয়েমেন ছাড়েন হাদি।

আগে থেকেই মধ্যপ্রাচ্যের সবচেয়ে দরিদ্র দেশ ইয়েমেন। দুই বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধে দেশটি এখন দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে। দেশটিতে দেখা দিয়েছে ইতিহাসের সবচে বড় মানবিক সংকট। সঙ্কট সামাল দিতে দরকার প্রায় ২১০ কোটি ডলার। যা সংগ্রহে আন্তর্জাতিক মহলের সহায়তা চেয়েছে জাতিসংঘ। -সূত্র: বিবিসি

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এইচআর