ব্রেকিং নিউজঃ

Published: 4 months ago

সালমান খানের ৬টি বাজে ছবি



বিনোদন ডেস্ক:

বলিউডে সালমান খানের ক্যারিয়ার শুরু ৯০ দশক থেকে। সিনেমায় তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা থাকলেও তখনও

পর্যন্ত তেমন সাড়া জাগানো ছবিতে অভিনয় করা হয়ে ওঠে নি তার। একটি সময় পর দেখা গেল, শুধু কমেডি ছবিতেই অভিনয় করে চলছেন সালমান। এর মাঝে কিছু বিরতির পর ২০০৯ সালে ‘ওয়ান্টেড’ ছবিটির মাধ্যমে সুপারহিট ছবির মোহর লাগিয়ে বলিউডে ফেরেন নায়ক। এই ছবিটির মুক্তির পর থেকে বলিউডের বক্স অফিস নতুন করে কাঁপানো শুরু করেছিলেন সালমান খান।

এরপর আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি বলিউড ভাইজানকে। বক্স অফিসকে ১০০ কোটির ক্লাব থেকে তিনশ কোটির ক্লাব পর্যন্ত চিনিয়েছেন এই সালমানই। গতবছর ‘সুলতান’ ছবিটির মাধ্যমে যত প্রশংসা তিনি পেয়েছিলেন, এবারের ঈদে মুক্তি পাওয়া ‘টিউবলাইট’ ছবিটি ততই নিন্দা কুড়িয়েছে।

শুধু ‘টিউবলাইট’ নয়, এছাড়াও আরও বেশ কিছু চবিতে সালমান খান দর্শকদের চমক দিতে পারেন নি। বক্স অফিসের ব্যর্থতার পাশাপাশি তিনি বাজে অভিনেতার খেতাবও জিতেছিলেন সেই ছবিগুলোতে অভিনয়ের মাধ্যমে। এক নজরে দেখে নিন সেসব সিনেমার নাম-

১. হ্যালো ব্রাদার

১৯৯৯ সালের ১০ সেপ্টেম্বর মুক্তি পায় ছবিটি। কমেডি ঘরানার এই ছবিটিতে সালমানের সঙ্গে ছিলেন তার ভাই আরবাজ খান ও রানি মুখার্জী। ছোটভাই সোহেল খানের প্রোডাকশন ও পরিচালনায় নির্মিত ছবিটি সালমানের সবচেয়ে বাজে ছবি হিসেবে চিহ্নিত করে দর্শক।

২. সালাম এ ইশক

একঝাঁক তারকা নিয়ে নির্মিত ছবিটির একটি অংশে সালমান অভিনয় করেন। তার বিপরীতে ছিলেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। ২০০৭ সালের অন্যতম বাজে সিনেমা ‘সালাম এ ইশক’। অতিরঞ্জিত অভিনয় ও দর্শকদের জোর করে হাসানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হন সালমান।

৩. হার দিল জো প্যায়ার কারেগা

২০০০ সালে মুক্তি পেয়েছিলো ছবিটি। গান গেয়ে খ্যাতি পাওয়ার আশায় গ্রাম থেকে শহরে আসা এক তরুণের কাহিনি নিয়ে নির্মিত হয়েছে ছবিটি। দুই নায়িকা রানি ও প্রীতি থাকা স্বত্বেও দর্শক টানতে ব্যর্থ হন সালমান। কারণ- অবশ্যই তার অতি অভিনয় প্রদর্শনের দক্ষতা। তবে ছবির গানগুলো হৃদয় কেড়েছিলো ভক্তদের।

৪. ম্যায় অউর মিসেস খান্না

হলফ করে বলতে পারি, আপনাকে কেউই এই ছবির নাম শোনেন নি। তবে এতে সালমানের সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন কারিনা কাপুর ও সোহেল খান। ২০০৯ সালে ছবিটি আলোর মুখ দেখলেও সাফল্য তো দূরে থাক, ছবিটির প্রচারণাও হয় নি। যার ফলাফল, বক্স অফিসে ব্যর্থতা। এতেও বাজে অভিনয় করে নিন্দিত হয়েছেন সালমান।

৫. কাহি প্যায়ার না হো যায়ে

২০০০ সালে মুক্তি পাওয়া সালমানের আরেকটি সিনেমা এটি- যা বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ে। তারকা বহুল ছবিটিতে সালমান ছাড়াও ছিলেন জ্যাকিশ্রফ, রাভিনা ট্যান্ডন, পূজা বাত্রা ও রানি মুখার্জী। এতেও গায়ক রূপে দেখা দেন সালমান। কিন্তু অতি অভিনয় ও জোর করে দর্শককে হাসানোর চেষ্টায় ভরাডুবি খায় ছবিটি।

৬. টিউবলাইট

সবশেষে সালমানের সাম্প্রতিক মুক্তি পাওয়া ছবি ‘টিউবলাইট’। বক্স অফিস আলোকিত করতে পারেনি সালমানের টিউবলাইট। পিটপিট করে জ্বলার আগেই নিভে গেলো বাতি। এই ছবিতে সালমান অভিনয় করেছেন একজন প্রতিবন্ধী চরিত্রে। কিন্তু চরিত্রের তুলনায় বয়স্ক লেগেছে সালমানকে। কমেডিতেও মার খেয়েছেন তিনি। সংলাপ বলা ও অভিনয়ে গুরুত্ব কম ছিল। বিশেষ করে তার সহঅভিনেতা ও অভিনেত্রীদের বাজে অভিনয় ছবিটিকে ব্যর্থতার খাতায় নাম লেখাতে বাধ্য করে।
বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এইচএম