ব্রেকিং নিউজঃ

হারের বৃত্তেই নাসিরের দল, রানে ফিরলেন গেইল, অবশেষে জয় মাশরাফির  ***  কুমিল্লাকে জেতালেন পাকিস্তানের হাসান আলী ও শোয়েব মালিক  ***  অবশেষে ড্র হলো শ্রীলঙ্কা-ভারত ১ম টেস্ট  ***  রাষ্ট্রদ্রোহী মামলায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত।  ***  খ্যাতিমান সঙ্গিতশিল্পী বারী সিদ্দিকীর শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন।  ***  বিপিএলঃ ঢাকা ডাইনামাইটসকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স: অপর ম্যাচ সিলেট সিক্সার্সকে ৭ রানে হারিয়েছে রংপুর রাইডার্স।  ***  বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরোদ্ধে নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠণের শুনানি ১১ ডিসেম্বর।  ***  উল্টো পথে গাড়ী চালানো এবং অবৈধ পার্কিং করলে সর্বোচ্চ পাচঁ হাজার টাকা জরিমানা  ***  ৭ মার্চকে কেন জাতীয় দিবস ঘোষণা নয়, জানতে হাইকোর্টের রুল।  ***  আবারও ভুল না করে বিএনপি নির্বাচনে আসুক, চায় সরকার: ওবাইদুল
Published: 6 months ago

আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস আজ



১৫ মে , আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস। পারিবারিক বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে বন্ধন দৃঢ়করণ ও সৌহার্দ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে মূলত এ দিবস পালনের প্রয়াস নেয়া হয়।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ কর্তৃক ১৯৯৩ সালে গৃহীত এক প্রস্তাব অনুযায়ী ১৫ মে, আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস ঘোষণা করা হয়। ১৯৯৪ সালকে আন্তর্জাতিক পরিবার বর্ষও ঘোষণা করেছিল জাতিসংঘ এবং পরবর্তীতে ১৯৯৫ সাল থেকে সমগ্র বিশ্বে প্রতি বছর এ দিনটি আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল ৭ কোটি ৯০ লাখ। আমাদের দেশে জনসংখ্যা বাড়ছে দ্রুত। বাড়ছে পরিবারের সংখ্যা। ২০০০ সালে এ জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৩ কোটিতে। বর্তমানে ধরা হয় সাড়ে ১৬ কোটি। ৭১-এ পরিবার ছিল প্রায় ৯০ লাখ। এখন পরিবারের সংখ্যা ২ কোটির বেশি।

পরিবার মানেই হচ্ছে মা, বাবা, ভাই, বোন, দাদা, দাদী সবাইকে নিয়ে এক সঙ্গে বসবাস। আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় পরিবারের এই ধারণা প্রচলিত অতীত থেকেই। কিন্তু দিন যতোই যাচ্ছে আমরা যেন ততোই এই ধারণা থেকে বেরিয়ে আসছি। যেন ক্রমেই ‘স্বামী-স্ত্রী-সন্তানেই’ সীমাবদ্ধ করে ফেলছি আমরা পরিবারকে। সেখানে মা-বাবা কিংবা দাদা-দাদীর কোনো স্থান নেই। মা-বাবাকে হয়তো গ্রামের বাড়িতে কাটাতে হচ্ছে নিঃসঙ্গ অসহায় জীবন। আবার অনেক মা-বাবার ঠিকানা হচ্ছে ‘বৃদ্ধাশ্রম’। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে একান্নবর্তী কিংবা যৌথ পরিবারের ধারণা যেন এখন ‘সেকেলে’ হয়ে গেছে। বিশেষ করে, শহুরে জীবন ব্যবস্থায় এই ব্যাপারটি চরম আকার ধারণ করেছে। সমাজবিজ্ঞানীদের মতে, আমাদের সমাজে প্রচলিত যৌথ পরিবারে পারস্পরিক সম্প্রীতি গভীর হয়, অটুট থাকে। অসুখ বিসুখসহ নানা সমস্যায় একে অন্যের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়। এতে অনেক বড় সমস্যাও সমাধান হয়ে যায় অতি সহজে।

আমাদের জাতিগত বৈশিষ্ট্য আছে, আছে নিজস্ব কৃষ্টি-সংস্কৃতি। এইসব কিছুকেই আমাদের ধারণ করে সামনে এগোতে হবে। সর্বোপরি পারিবারিক বন্ধন ভেঙে যাচ্ছে বলেই আমাদের সামাজিক নানা সমস্যা দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। বাড়ছে অস্থিরতা। ধর্মীয় বিধানেও রক্তের সম্পর্ক অক্ষুণ্ন রাখার ওপর তাগিদ দেয়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিক পরিবার দিবসে আমাদের প্রত্যাশা থাকবে, ‘পরিবারের প্রতিটি সদস্যের মধ্যে পারস্পরিক সৌহার্দ্য অক্ষুণ্ন থাকুক-প্রতিটি পরিবারে বিরাজ করুক অনাবিল সুখ শান্তি আর ভালবাসা।’

 

বাংলা রিপোর্ট ডটকম/এ এইচ